শিরোনাম:

সুদের টাকার জন্য কৃষক দম্পত্তিকে মারধর

জেলা প্রতিনিধি, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : শনিবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৭, ০৪:৫৭
অ-অ+
সুদের টাকার জন্য কৃষক দম্পত্তিকে মারধর
ছবি: ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

লালমনিরহাট: বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক দম্পত্তি সুদের টাকা দিতে না পারায় মারধরের পর গরু-ছাগল নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক দাদন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। 
 
শনিবার ( ১৯ আগস্ট) সকালে আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আহত ওই কৃষক দম্পত্তি। আহত কৃষক দম্পত্তিরা হলেন, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তার চরাঞ্চল বারঘড়িয়া গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে বর্গাচাষি আলম বাদশা ও তার স্ত্রী মৌসুমী বেগম।


স্থানীয়রা জানান, তিস্তা নদীর থাবায় কয়েকবার ঘর বাড়ি ভেঙে যাওয়ায় উপজেলার বারঘড়িয়া গ্রামে অন্যের জমিতে বাড়ি তৈরি করেন বর্গাচাষি আলম বাদশা। শুষ্ক মৌসুমে তিস্তার চরে জেগে উঠা জমি বর্গা নিয়ে চাষাবাদ করে চলে তার সংসার। গত পেঁয়াজ মৌসুমে চাষাবাদের জন্য বারঘড়িয়া গ্রামের ছেপত উল্লার ছেলে দাদন ব্যবসায়ী আশরাফ আলীর নিকট  থেকে ৭ শত টাকা নেন। বন্যার কারণে সেই টাকা পরিশোধ করতে পারেননি আলম বাদশা। ওই সাত শত টাকা ৮ মাসে সুদে ২ হাজার ৭শত টাকায় দাঁড়ায় দাদন ব্যবসায়ীর খাতায়।

শুক্রবার বিকেলে দলবলে ওই কৃষকের বাড়িতে সুদের টাকা আদায় করতে যান দাদন ব্যবসায়ী আশরাফ আলী। বন্যায় সবকিছু নষ্ট হওয়ায় কয়েকটা দিন সময় চাইলে কৃষক আলম বাদশা ও তার স্ত্রী মৌসুমি বেগমকে মারপিট করা হয়। এ সময় বাড়িতে থাকা একটি গরু ও একটি ছাগল নিয়ে যান দাদন ব্যবসায়ী। পরে আহত কৃষক দম্পত্তিকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি করে।

হাসপাতালে আলম বাদশার স্ত্রী মৌসুমি বেগম জানান, পেঁয়াজ চাষ করতে ৭ শত টাকা নিয়েছিলেন। কিন্তু গেল বন্যায় তাদের সবকিছু নষ্ট হওয়ায় অভাবের কারণে টাকা পরিশোধ করতে পারেননি। টাকা পরিশোধ করতে কয়েক দিন সময় চাওয়ায় তাদেরকে মারপিট করে বর্গা নেয়া গরু ও ছাগল নিয়ে যায় আশরাফ আলী। 

স্থানীয় ইউপি সদস্য আজহার আলী জানান, গৃহিনী মৌসুমিকে বেধম মারপিট করেছে শুনেছি। গরু ছাগল দুটি বিক্রি না করতে আশরাফ আলী নিষেধ করা হয়েছে।

আদিতমারী হাসপাতালের জরুরি বিভাগের উপ সহকারী মেডিকেল অফিসার সৌরভ কুমার দত্ত জানান, কৃষক দম্পত্তিকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। মৌসুমী বেগম বেশি আঘাত পেয়েছেন। তবে তারা আশংকামুক্ত বলেও জানান তিনি।
 
আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেশ্বর রায় জানান, হাসপাতালেই কৃষক দম্পত্তির কাছে শুনা তাদের অভিযোগটি তদন্ত করা হচ্ছে। কৃষক দম্পত্তিকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি/ এমএইচ