শিরোনাম:

কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন আজ

নিউজ ডেস্ক, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭, ০৮:৫৪
অ-অ+
কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন আজ
ফাইল ছবি

ঢাকা : ‘মরিলে কান্দিস না আমার দায়’- ছিলো তার প্রিয় গান। অথচ’ তার তিরোধানের অশ্রু আজও শুকায়নি ভক্তদের চোখ থেকে। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই চলে গেছেন অন্যভুবনে।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জে জন্ম। বাবা ফয়েজুর রহমান ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। শৈশবে বাবার কাজের সূত্রে ঘুরেছেন দেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে।  একাত্তরে পাকিস্তানি সেনাদের হাতে হারাতে হয় বাবাকে। সেই থেকে মা আয়েশা ফয়েজ ও ছোট পাঁচ ভাইবোনের দায়িত্ব নিজের কাঁধেই তুলে নেন তরুণ হুমায়ূন। 

একাত্তরে অনেকের সঙ্গে তিনি বন্দি ছিলেন পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর শিবিরে। সেখানে বসেই লিখেছিলেন প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’। দেশ স্বাধীন হলে বই আকারে প্রকাশ পায় এটি। তারপর থেকেই বাঙালি তরুণদের মনে স্থায়ী আসন গেঁড়ে বসেন দুইশ’রও বেশি গ্রন্থের এই জনক। তার দুই সহোদর মুহাম্মদ জাফর ইকবাল এবং আহসান হাবীবও জনপ্রিয় লেখক।

দীর্ঘ প্রায় পাঁচ দশক তিনি লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বাংলা সাহিত্যের তুঙ্গস্পর্শী জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ নাটক, শিশুসাহিত্য, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, চলচ্চিত্র পরিচালনা থেকে শুরু করে শিল্প-সাহিত্যের প্রতিটি ক্ষেত্রে রেখে গেছেন নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর। সাহিত্যের যে ক্ষেত্রেই হাত দিয়েছেন, ফলিয়েছেন সোনা। পেয়েছেন অবিশ্বাস্য সাফল্য। হুমায়ূন আহমেদ বাংলা সাহিত্যে বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর জনক। ১৯৭২ সালে প্রথম উপন্যাস 'নন্দিত নরকে' প্রকাশের পর তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। উপন্যাস ও নাটকে তার সৃষ্ট চরিত্রগুলো বিশেষ করে 'হিমু', 'মিসির আলী', 'শুভ্র' তরুণ-তরুণীদের কাছে হয়ে ওঠে মিথ।

হুমায়ূন আহমেদের লেখা উপন্যাসের সংখ্যা দুই শতাধিক। উল্লেখযোগ্য উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে নন্দিত নরকে, লীলাবতী, কবি, শঙ্খনীল কারাগার, মন্দ্রসপ্তক, দূরে কোথায়, সৌরভ, ফেরা, কৃষষ্ণপক্ষ, সাজঘর, বাসর, গৌরিপুর জংশন, নৃপতি, অমানুষ, বহুব্রীহি, এইসব দিনরাত্রি, দারুচিনি দ্বীপ, শুভ্র, নক্ষত্রের রাত, কোথাও কেউ নেই, আগুনের পরশমণি, শ্রাবণ মেঘের দিন, বৃষ্টি ও মেঘমালা, মেঘ বলেছে যাবো যাবো, জোছনা ও জননীর গল্প, দেয়াল প্রভৃতি। তার সর্বশেষ উপন্যাস 'দেয়াল'ও পায় আকাশচুম্বী পাঠকপ্রিয়তা। রচনা ও পরিচালনা করেছেন বহু একক ও ধারাবাহিক নাটক। পরিচালনা করেছেন চলচ্চিত্রও। তার সর্বশেষ চলচ্চিত্র 'ঘেটুপুত্র কমলা'র জন্য তিনি লাভ করেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

হুমায়ূন আহমেদ তার দীর্ঘ চার দশকের সাহিত্যজীবনে বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, হুমায়ুন কাদির স্মৃতি পুরস্কার, লেখকশিবির পুরস্কার, মাইকেল মধুসূদন দত্ত পুরস্কার, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও বাচসাস পুরস্কার অন্যতম। দেশের বাইরেও সম্মানিত হয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। জাপানের এনএইচকে টেলিভিশন তাকে নিয়ে 'হু ইজ হু ইন এশিয়া' শিরোনামে ১৫ মিনিটের একটি তথ্যচিত্র প্রচার করে।

তার জন্মদিনটি ঘিরে দেশজুড়ে হুমায়ূনভক্তদের মধ্যে উন্মাদনা এখনও রয়েছে। বরাবরের মতো এবারও নানা আয়োজনে পালিত হবে হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন।

ব্রেকিংনিউজ/এনকে