শিরোনাম:

ঘটনা জানতে চাওয়ায় সাংবাদিককে ‘থাপড়াবেন’ বললেন প্রক্টর

কুবি প্রতিনিধি, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : বুধবার, ০৯ অগাস্ট ২০১৭, ১০:৪০
অ-অ+
ঘটনা জানতে চাওয়ায় সাংবাদিককে ‘থাপড়াবেন’ বললেন প্রক্টর
ছবি: ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

কুবি: কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে(কুবি) শিবির বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল শেষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কাছে দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে মুঠোফোনে কথা বললে এক সাংবাদিককে থাপড়িয়ে দাঁত ফেলে দেওয়া কথা বলেন প্রক্টর ড. কাজী কামাল উদ্দিন। 

জানা যায়, সিলেটে দুই ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত করার প্রতিবাদে বুধবার ক্যাম্পাসে শিবির বিরোধী বিক্ষোভ করে শাখা ছাত্রলীগ। বিক্ষোভ শেষে গণিত ৯ম ব্যাচের শিক্ষার্থী আব্দুর রহমানকে বাস থেকে নামিয়ে বিশ্বব্যিালয়ের ফটকের সামনে চায়ের দোকানের পাশে নিয়ে আসে ছাত্রলীগ কর্মীরা। পরে তাকে বেধড়ক পিটাতে থাকে ছাত্রলীগ কর্মী মীর (নৃবিজ্ঞান), বিদুৎ (পদার্থ), সাদ (নৃবিজ্ঞান) ও এআইএস বিভাগের দ্বীন ইসলাম লিখন, শাহাদাৎ হোসেন সৌরভ, মাসুদসহ আরো অনেকে। এ সময় পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ইলিয়াস হোসেনসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী। 

মারধরের ঘটনার পরে ওই শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের জিজ্ঞাসাবাদের সময় ঘটনা স্থলে আসে প্রক্টর কাজী কামাল ও সহকারী প্রক্টর খলিলুর রহমান। এ সময় তারা অনেকটাই নির্বাক থাকেন। পরে আহত আব্দুর রহমানকে সিএনজিতে করে পাঠিয়ে দেয় প্রক্টর। 

এ ঘটনার ঠিক পরপরই এক কোরআনের হাফেজ ও ইংরেজী বিভাগের ৭ম ব্যাচের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলামকে সামাজিক বন বিভাগে শিবির বলে মারধর করে ছাত্রলীগ কর্মীরা। তবে যাদের মারা হয়েছে তারা কেউই ছাত্র শিবিরের সাথে সম্পৃক্ত নয় বলে সাংবাদিকদের জানান ভূক্তভোগীরা। 

কেন তাদের মারা হল এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে  যারা শিবির নামধারী হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে নাশকতা করবে তাদের বিষয়ে ছাত্রলীগ কঠোর অবস্থান নিবে।’
 
এ বিষয়ে প্রক্টরের ড. কাজী মোহাম্মাদ কামাল উদ্দিনের সাথে কথা বললে তিনি সকালের খবররের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ও সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদককে ‘থাপড়িয়ে’ দাঁত ফেলে দেওয়ার কথা বলেন। তিনি ওই সাংবাদিককে ধমকিয়ে বলেন, ‘আমার বক্তব্যের বাহিরে নিউজ লিখবা না।’

ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি/ এমএইচ