শিরোনাম:

ছাত্রলীগের সংঘর্ষে পাবনা মেডিকেল কলেজ বন্ধ

পাবনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৮, ০৫:৪৯
অ-অ+
ছাত্রলীগের সংঘর্ষে পাবনা মেডিকেল কলেজ বন্ধ
ফাইল ফটো

সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্ব আর ক্যাম্পাসে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পাবনা মেডিকেল কলেজে (পামেক) ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের দফায় দফায় ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সভাপতি ও সম্পাদক গ্রুপের ৯ জন আহত হয়েছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পামেক কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য কলেজ বন্ধ ঘোষণা করেছে।

শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) দুপুর দুইটার মধ্যেই হল ত্যাগের নির্দেশ দেন কলেজ প্রশাসন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬ টা পর্যন্ত দফায় দফায় এই ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইন্টার্ন চিকিৎসক মাহফুজ নয়ন মেডিসিন ক্লাব নিয়ন্ত্রণ করেন। আর সাধারণ সম্পাদক অদ্বিতীয় দে’র নিয়ন্ত্রণে রয়েছে রোটারি ক্লাব গ্রুপ। কলেজে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এই দু’গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘসময়ের বিরোধ চলে আসছে। এরই মধ্যে কলেজে নতুন সেশনের শিক্ষার্থী বরণকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে বৃহস্পতিবার রাত থেকে ক্যাম্পাসে তিন দফা সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষের ৯ জন আহত হয়।

আহতরা হলেন-মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু তোরাব মিম, বঙ্গবন্ধু হলের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান, উপ যুগ্ম সম্পাদক জয়দেব কুমার সূত্রধর, সদস্য নির্ঝর, সাগর আহমেদসহ ৯ জন। আাহতদের মধ্যে কয়েকজনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক রিয়াজুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের (নয়ন-অদ্বিতীয়) মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই বিরোধ চলে আসছিল।

তিনি বলেন, তুচ্ছ বিষয়কে ইস্যু করে ছাত্ররা এ ক্যাম্পাসের পরিবেশ ও সুনাম নষ্ট করবে এটা মেনে নেওয়া হবে না। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পাবনা মেডিকেল কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দুপুর দুইটার মধ্যেই শিক্ষার্থীদের হোস্টেল ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা ঘটনা তদন্ত করছি, যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, ভোর থেকে পাবনা মেডিকেল কলেজের ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কয়েকজনকে আহত অবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় ক্যাম্পাসসহ হাসপাতাল চত্বরে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্রের দাবি, পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইন্টার্ন চিকিৎসক মাহফুজ নয়ন শুধু ক্যাম্পাসেই নয়, তার দাপট পাবনা জেনারেল হাসপাতালেও বিস্তার করেছেন। হাসপাতালে আসা রোগীসহ সংশ্লিষ্টরা অনেকেই তার উদ্ধর্তপূর্ণ আচরণে ক্ষুদ্ধ। তার এ উদ্ধর্তপূর্ণ আচরণের প্রতিবাদ জানালেই ‘ছাত্রলীগের ডাক্তার’ এমন পরিচয় দিয়ে হুমকি ধামকি এমনকি অশালিন আচরণও করেন।

ব্রেকিংনিউজ/ এমএইচ