শিরোনাম:

কেমন ছিল বিদায়ী বছর ২০১৭

পরিবেশ ডেস্ক, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ০১:৪৬
অ-অ+
কেমন ছিল বিদায়ী বছর ২০১৭
ছবি: ওয়েবসাইট

ঢাকা: ক্যালেন্ডারের পাতায় দেখতে দেখতে একটি বছর পার হয়ে আসছে। নতুন বছর হাতছানি দিচ্ছে। পুরনো বছরের জীর্নতা আর হতাশা মানুষের মাঝে বিরাজ করছে। আগামীর বার্তায় অনেকের মন উদ্বেলিত হচ্ছে। পুরনো বছরে পৃথিবীর মানুষের অর্জন বেশি নয়। হারিয়েছে অনেক বেশি। পৃথিবীর আকাশে প্রতিদিন জমছে কার্বন। হারিয়ে যাচ্ছে সবুজ বনায়ন। বাড়ছে খরা, বন্যা আর হানাহানি।

শেষ হয়ে এল ২০১৭। কিন্তু এমন এক বার্তা রেখে যাচ্ছে এই সাল, যা মোটেই সুবিধার নয়। সামগ্রিকভাবে মানব সভ্যতার উদ্দেশ্যেই এক সতর্কবার্তা জারি করে গেল এই বছরটি। এমন কথা জানাচ্ছে ওয়ার্ল্ড মেটিরিওলজিক্যাল অরগানাইজেশন।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ওয়ার্ল্ড মেটিরিওলজিক্যাল অরগানাইজেশন-এর পক্ষ থেকে জাননাো হয়েছে, ২০১৬ সালে পৃথিবীর যে গড় তাপমান রেকর্ড হয়েছিল, তার চাইতে বেশ খানিকটা বেশি ছিল ২০১৭।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ২০১৭ সম্ভবত বিশ্বের উষ্ণতম বছরগুলির একটি হয়ে থাকছে। হয়তো এটি উষ্ণতম ৩টি বছরের অন্যতম।

এ বছর সমুদ্রজলের উষ্ণায়ন এক বিশেষ জায়গায় পৌঁছেছে। প্রশান্ত মহাসাগরে ‘এল নিনো’  বা ‘উষ্ণ স্রোত’-এর প্রভাবে উষ্ণায়ন প্রকট। পৃথিবীর প্রায় সর্বত্রই ০.১ থেকে ০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বেশি দেখা গিয়েছে। বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণও সামগ্রিক ভাবে বেড়েছে। পূর্ব আফ্রিকায় দীর্ঘ অনাবৃষ্টি দেখা গিয়েছে। ক্যারিবিয়ান উপকূলে হার্ভে, ইরমা, মারিয়া-জাতীয় ঝঞ্ঝাও নিয়মিত দেখা গিয়েছে। পশ্চিম ইউরোপে জুন মাসে তীব্র গরম দেখা দেয়, পর্তুগালে তা দাবানলে পরিণত পায়। তীব্র সংকটে অস্ট্রেলিয়ার উপকূলও।

এই বিপদগুলি থেকে এটাই বোঝা যাচ্ছে যে, ২০১৭ এই গ্রহের কাছে খুব বেশি কোনও আশার কথা জানাচ্ছে না। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা যে হারে বাড়ছে, ২০১৭ পেরিয়ে ২০১৮-ও কোন আশা দেখাতে পারবে না বলেই মনে করছেন পরিবেশ বিজ্ঞানীরা।

ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি/ এমএইচ