শিরোনাম:

শিক্ষিত তরুণীর শরীর ভোগ করে ফেঁসে গেলেন সাংসদ

ভারত ডেস্ক, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০১৭, ১০:১০
অ-অ+
শিক্ষিত তরুণীর শরীর ভোগ করে ফেঁসে গেলেন সাংসদ
নম্রতার সঙ্গে ঋতব্রত

ঢাকা: বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক তরুণীর সঙ্গে রাতের পর রাত সহবাসের অভিযোগে আবারও ফেঁসে যাচ্ছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সংসদ সদস্য ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এরই ধারাবাহিকতায় নম্রতা দত্ত নামের ওই তরুণী মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) রাজ্যের বালুরঘাটের থানায় ঋতব্রতের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন।

গত ৪ অক্টোবর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যসভায় সিপিএমের তরুণ সদস্য ঋতব্রতের নারী কেলেঙ্কারির বিষয়টি প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে আসে। 

এদিকে টুইটারে করা এক পোস্টে নম্রতা দত্ত বলেন, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সঙ্গে একাধিকবার সহবাস করেন ঋতব্রত। পরে বিয়ে করতে অস্বীকার করেন। 

গতকাল সোমবার নম্রতা তার দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাটের বাসভবনে এক প্রেস কনফারেন্স করে জানান, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সাংসদ ঋতব্রত তার সঙ্গে একাধিকবার সহবাস করেন। বিমানের টিকিট পাঠিয়ে দিল্লিতে ঋতব্রতের সরকারি বাসভবনে নিয়েও তার সঙ্গে সহবাস করেন ওই সাংসদ। এমনকি নম্রতার মুখ বন্ধ করতে তাকে আড়াই লাখ টাকাও দিতে চায় ঋতব্রত। 


ওই তরুণী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি ছাড়াও ঋতব্রতের দুর্বা সেন নামে আরেকজন গার্ল ফ্রেন্ড আছে। এক সময় নাকি দুর্বা সেনও নম্রতাকে সাবধান করেছিল- ঋতব্রতের সঙ্গে সম্পর্কে না জড়াতে। 

নম্রতা বলেন, ‘গত বছরের মাঝামাঝি টুইটারে ঋতব্রতের সঙ্গে আমার আলাপ। ২০১৬ সালের জুন-জুলাই নাগাদ আমার বালুরঘাটের বাড়িতে আসে ঋতব্রত। সেখানেই আমাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল সে। এরপর আমাকে দিল্লিতে ওর সাউথ অ্যাভিনিউয়ের বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিল। ওর হাতের ঘড়ি, যা নিয়ে এত বিতর্ক, সেটাও আমারই দেওয়া। এখন ঋতব্রত আমাকে এড়িয়ে যাচ্ছে।’ 

নম্রতা নিজেকে ইউনেসকো’র রিসার্চ স্কলার বলে দাবি করে বলেন, ‘গত বছর অক্টোবরে আমি গবেষণার কাজে নেদারল্যান্ডে গিয়েছিলাম। কয়েকটি স্টাডি লিভ জমে থাকায় সম্প্রতি দেশে ফিরেছি। দেশে ফিরে আমি ঋতব্রতের দিল্লির বাড়িতে উঠেছিলাম। বাড়ির চাবি এখনও আমার কাছে।’



এদিকে মুখে কুলুপ না দিলে বাড়িতে ছেলে পাঠিয়ে তাকে ধষর্ণ করাবে বলেও নম্রতাকে হুমকি দিয়েছে ঋতব্রত। ইতোমধ্যে পুরো বিষয়টি ই-মেইলে মুখ্যমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয়ে জানিয়েছেন নম্রতা। 

উল্লেখ্য, রাজ্যসভায় সিপিএমের তরুণ সদস্য ঋতব্রত ২০১৪ সালে আইনসভার উচ্চকক্ষ রাজ্যসভার সদস্য (সাংসদ) নির্বাচিত হন। বেশ কিছুদিন ধরে দলের সঙ্গে টানাপোড়েন চলছিল তার। শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে চলতি বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর ঋতব্রতকে দল থেকে বহিষ্কার করে সিপিএমের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর