শিরোনাম:

একটা সমাবেশেই সরকারের মাথা খারাপ হয়ে গেছে: দুদু

স্টাফ ক‌রেসপন্ডেন্ট
‌ব্রে‌কিং‌নিউজ.কম.‌বি‌ডি
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ০১:৩৪
অ-অ+
একটা সমাবেশেই সরকারের মাথা খারাপ হয়ে গেছে: দুদু
ছবি: জুয়েল রানা; ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

ঢাকা: খালেদা জিয়ার একটা সমাবেশ দেখেই সরকারের মাথা খারাপ হয়ে গেছে মন্তব্য করে সরকারের উদ্দেশ্যে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া একটা সভা করেছেন। এই একটা সভার অবস্থা বুঝতে পারছেন তো? তাতেই ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আপনাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। আমরা নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি এবং নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাস করি। আমরা নির্বাচনে যেমন বিশ্বাস করি, গণঅভ্যুত্থানেও বিশ্বাস করি। আমরা কোন দিকে যাবো আমাদের নেত্রী ১২ তারিখে সেটার নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছেন স্পষ্ট করে। এখানে কোন রাগ নেই আমরা শেখ হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচন করবো না। তাহলে কীভাবে করবো? ১৯৯১, ৯৬, ২০০১ সালের মতো করবো আর চাইলে ২০০৮ মতো করবো। এগুলো আলোচনা করে আমরা ঠিক করবো।’

‌মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক আ‌লোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মহান জাতীয় বিপ্লব ও সংহ‌তি দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী কৃষকদল এ আ‌লোচনা সভার আ‌য়োজন করে। 

বর্তমান অবৈধ সরকারের গুম, খুন, অপহরণ বন্ধ করতে খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী করতে হবে বলে মন্তব্য করে তি‌নি বলেন, ‘গুম, খুন, অপহরণ যদি রোধ করতে হয় তাহলে বেগম জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী বানাতে হবে। লুটপাট বন্ধ করে, অর্থনীতিতে সু-বাতাস ফিরিয়ে আনতে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের লুট হওয়া টাকা ফিরিয়ে আনতে এবং সেই সাথে বিচার ব্যবস্থায় যদি সত্যিকারে মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হয় তাহলে বেগম জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী করা ছাড়া দ্বিতীয় কোন পথ নেই।’

শামসুজ্জামান দুদু আরও বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী হাসিনার অধীনে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর অধীনে আমরা নির্বাচন করবো? আমরা কি ঠেকায় পড়ছি নাকি? হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচন হবে না। হতে দেয়া হবে না। এটা হচ্ছে ৭ নভেম্বরের চেতনার আরেকটি দিক। আমাদের সবাইকে এই ভাবে মনে মনে তৈরি হতে হবে।’

এ সময় সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে সাবেক এই সংসদ সদস্য বলেন, ‘১২ নভেম্বরের জনসভায় বেগম জিয়া যে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন সেটা সফল হলে আন্দোলনের প্রয়োজন নেই, আর না হলে আন্দোলন কত প্রকার এবং কি কি এবার বিএনপি এবং ২০ দল মাঠেই দেখিয়ে দিবে।’

৭ নভেম্বরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘৭ই নভেম্বর বাংলাদেশের দ্বিতীয় স্বাধীনতা দিবস। ৭ নভেম্বর বহুদলীয় গণতন্ত্রের পথ প্রশস্ত করেছিলেন।’

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএন‌পির স্থায়ী ক‌মি‌টির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হো‌সেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়া‌জ্জেম হো‌সেন আলাল, কৃষকদলের সহ-সভাপ‌তি না‌জিম উ‌দ্দিন, মেহেদী আহমেদ, এম এ তাহের, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তক‌দির হো‌সেন জ‌সিম, ওলামা দ‌লের সভাপ‌তি মাওলা আব্দুল মা‌লেক, সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. নেছারুল হক, কৃষক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মাইনুল ইসলাম প্রমুখ। 

ব্রেকিংনিউজ/ এএইচ/ এসএ