শিরোনাম:

নির্বাচনে না আসা বিএনপির জন্য অশনিসংকেত: কাদের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,
ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ০৭:২৩
অ-অ+
নির্বাচনে না আসা বিএনপির জন্য অশনিসংকেত: কাদের

ঢাকা: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিলে বিএনপির জন্য অশনি সংকেত অপেক্ষা করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) রাজধানীর বিবি অ্যাভিনিউতে শ্রমিক লীগের এক সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

‘বর্তমান সংসদকে অবৈধ ও অকার্যকর আখ্যা দিয়ে রায় দিতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে সরকার প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করেছে। আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম সংসদের অনির্বাচিত ১৫৪ জনের বিরুদ্ধে একটি রিট করা আছে। যার রায় প্রধান বিচারপতি ছুটি শেষে দেশে এসে দেবেন। হয়ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে ১৫৪ আসন অবৈধ। আর সেটা হলে সরকার অবৈধ হয়ে যাবে। সেই আশঙ্কা থেকে সরকার সুস্থ মানুষকে অসুস্থ বানিয়ে প্রথমে দেশ ত্যাগ পরবর্তীতে পদত্যাগে বাধ্য করেছে।’ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফের এই বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন কাদের। 

তিনি বলেন, ‘এটাও জানেন না যে সংসদে ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হয়নি। হয়েছে ১৫৩ জন। আপনারা নির্বাচনে আসবেন না বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছেড়ে দিবেন আবার এ কথা বলবেন? আপনি নির্বাচনে আসলেন না তার দোষটা কি গণতন্ত্রের? বৈধতার কোনও বিষয় এখানে নেই।  আদালত কি বসে বসে ঘাস খায় নাকি? এখন তো  নির্বাচন কমিশনকে আদালতের একটা রায় দেয়া দরকার- যে বিএনপিকে যে কোনও উপায়ে ক্ষমতায় বসাতে। তাহলে তারা খুশি হবে।’

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশে খালেদা জিয়ার বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আপনি আমাদের কি শুদ্ধ করবেন? আপনারা নিজেরা আগে শুদ্ধ হন। তারপর অপরকে শুদ্ধ হতে বলবেন। আমরা শতভাগ শুদ্ধ বলব না। তবে শত ভাগের কাছাকাছি আছি। আর আপনারা শতভাগের কাছাকাছি অশুদ্ধ আছেন। আপনি বলেন, আমাদের শুদ্ধ করবেন? আপনাদের শুদ্ধ করবে কে?’

কাদের বলেন, ‘বিএনপি এতো অত্যাচার, জুলুম, খুন, লুটপাট করেছে তাদের অনেক পাপ জমে গেছে। তাদের এতো পাপ যদি বুড়িগঙ্গাতে ধৌত করতে যায় তাহলে বুড়িগঙ্গার পানিও নষ্ট হয়ে যাবে। আগে নিজেরা শুদ্ধ হন।’

এর আগে নিজ দলের নেতাকর্মীদের সমালোচনা করে কাদের বলেন, ‘কি ধরনের সমাবেশে কারা থাকবে এ ধরনের একটা নিয়ম হওয়া দরকার। আমাদের দলের মধ্যে শৃঙ্খলা থাকা দরকার। বক্তব্য যারা দেন তারা পড়াশুনা করে বক্তব্য দিবেন। দৈনিক পত্রিকাগুলো পড়েন। ৫ বছর আগে যে বক্তব্য শুনেছি, সেই একই বক্তব্য এখনো শুনি। নেতাকে খুশি করতে করতে দিন শেষ করে দেন। নিয়ম কানুন মেনে দলের সকল কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করা দরকার।’

এর আগে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সসম্পাদক মাহবুব -উল- আলম হানিফ খালেদা জিয়ার বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, ‘শেখ হাসিনা কি এমন করেছে, যে তাকে ক্ষমা করতে হবে আপনার? আপনি তো মানুষকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে মেরেছেন। তাদের কাছে নিজে আগে ক্ষমা চেয়ে নিন।’

জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শুক্কুর মাহমুদ এর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের  শ্রম ও জনশক্তি সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান, জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, কার্যকরী কমিটির সভাপতি ফজলুল হক মিন্টু, সহ-সভাপতি আমিরুল হক ফারুক প্রমুখ।

ব্রেকিংনিউজ/আইএইচ/এনএআর