শিরোনাম:

জাতীয় ঐক্যে জামায়াত না থাকলে ভেবে দেখবে এনডিপি

এস এম আতিক হাসান
৯ জুন ২০১৮, শনিবার
প্রকাশিত: 2:36 আপডেট: 3:48
জাতীয় ঐক্যে জামায়াত না থাকলে ভেবে দেখবে এনডিপি

খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা ১৯৭২ সালে ঢাকার নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হোন। ছোটবেলা থেকেই রাজনীতির প্রতি আগ্রহ থাকায় জাসদ ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতি শুরু করেন। তিনি জাসদ ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৮৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর প্রখ্যাত সাংবাদিক ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী আনোয়ার জাহিদের নেতৃত্বে গড়ে উঠা ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপির) প্রতিষ্ঠাকালীন সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন। পরবর্তীতে ১৯৮০ সালে আনোয়ার জাহিদ দল ত্যাগ করে বিএনপিতে যোগদান করলে খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা এনডিপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান। বর্তমানে এই দলটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীকনেতা।
 
সম্প্রতি একান্ত সাক্ষাৎকারে দেশের জনপ্রিয় অনলাইন গণমাধ্যম ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি-এর মুখোমুখি হন এই রাজনীতিক। দীর্ঘ সময়ের কথোপকথনে উঠে আসে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, প্রত্যাশা ও ব্যক্তিজীবনের জানা-অজানা নানা তথ্য-উপাত্ত। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ব্রেকিংনিউজের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট এস এম আতিক হাসান।
 
ব্রেকিংনিউজ: দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিটাকে কীভাবে দেখছেন?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে বলতে গেলে একটা কথাই বলতে হয়- বর্তমান সরকার ও রাষ্ট্র দুইটা পৃথক জিনিস, সরকার হচ্ছে জনগণের সরকার, জনগণ ভোট দিয়ে সরকার বানায় কিন্তু রাষ্ট্র রাষ্ট্র থাকে, সেক্ষেত্রে আমাদের দেশে কারো কোনো স্বাধীনতা নেই, কোনো নিরাপত্তা নেই, প্রত্যেকটা মানুষই জিম্মি হয়ে আছে সরকারের কাছে। বর্তমান সরকার গণপ্রজাতন্ত্রের কোনো ধারা বজায় রাখছে না। সাংবিধানিক আইন অনুযায়ী চলছে না, তারা ক্রমাগত বেআইনি কাজ করে যাচ্ছে। আর সামনে জাতীয় নির্বাচন। এই নির্বাচনের আগে একের পর এক সিটি করপোরেশন নির্বাচন দিয়ে যাচ্ছে। আর সেই কারণে মানুষের ভীতি প্রদর্শনের জন্য মাদক নিয়ে ক্রসফায়ারের খেলা খেলছে, যা বেশিরভাগ সাধারণ মানুষের উপর দিয়ে যাচ্ছে। এসব কারণেই আইনের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা থাকছে না। যে যত বড় অপরাধীই হোক না কেন তাকে ক্রসফায়ার না দিয়ে আইনের মাধ্যমেই বিচার করা হোক। ক্রসফায়ার কোনো সমাধান না, দ্রুত আইনে এর বিচার আছে, আপনি সেখানে এই বিচার করেন।
 
ব্রেকিংনিউজ: দেশের এমন পরিস্থিতিতেও আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু আশা করছেন কিনা?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: বর্তমান নির্বাচন কমিশন থাকলে নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। তাদের যে ব্যবস্থা, এ ব্যবস্থাই সুষ্ঠু নির্বাচনের পক্ষে না। আমরা নির্বাচনে যাব কিনা সেটা পরের বিষয়, নির্বাচনই করতে দেবো কিনা সেটাই মুখ্য বিষয়। কিভাবে সেই পরিকল্পনা করতে হবে আমাদের সেটাই ভাবতে হবে।


 
ব্রেকিংনিউজ: ২০ দল একদিকে আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে, অন্যদিকে নির্বাচনের কথা বলছেন আপনাদের প্রধান উদ্দেশ্যটা কি?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: আমরা ২০ দল গণতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করি, আমাদের উদ্দেশ্য হলো নির্বাচন এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন করা। তাছাড়া সরকার পরিবর্তনের কোনো পন্থা আমাদের জানা নেই, সে ক্ষেত্রে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। ২০১৪ সালে নির্বাচনের সময় শেখ হাসিনা বলেছিলেন এটা সাংবিধান রক্ষার নির্বাচন আবার একটা নির্বাচন দিব কিন্তু তিনি তাঁর কথা রাখেননি। সে সময় আমরা তেমনভাবে প্রতিরোধ করতে পারি নাই সেটা কিন্তু নয়, আমরা প্রতিরোধ করেছি বলেই ১৫৩ জন সাংসদ বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী নির্বাচন যদি সুষ্ঠু না হয়, জনগণের ভোটাধিকার না পায়, যদি ফের ৫ জানুয়ারি এবং খুলনার মতো নির্বাচন হয় তাহলে আমরা এবার শুধু প্রতিরোধ করবো না বরং নির্বাচনী হতেই দেবো না।’

ব্রেকিংনিউজ: ২০ দলে আপনারা যথাযথ মূল্যায়ন পাচ্ছেন কিনা?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: ২০ দল একত্রিত হয়ে একটি জোট গঠন করা হয়েছে, তার প্রধান নেত্রী হলেন বেগম খালেদা জিয়া। এই জোটে আমার যেটুকু মর্যাদা পরিধি আছে সে অনুযায়ী আমি মূল্যায়ন পাচ্ছি।’
 
ব্রেকিংনিউজ: বিএনপি তো এখন সংকটময় সময় অতিক্রম করছে। এই সময় যদি অন্য বড় দল থেকে বড় কোনো প্রস্তাব আসে তাহলে কি আপনি এই জোটে থাকবেন?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: আমি ওই রকম কখনই কোনো কিছু করবো না, যদি করতাম তাহলে ১৪ সালেই করতাম।
 
ব্রেকিংনিউজ: আপনাদের ২০ দলীয় জোটের ভবিষ্যৎ কি?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবেন বেগম খালেদা জিয়া, তিনি আমাদের সাথে বসে ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবেন। তিনি কারাগারে আমরা বাহিরে, আমাদের এখন মূল পরিকল্পনা হচ্ছে তাঁকে মুক্ত করা। এই যে তাঁকে একটা মামলায় জামিন দেয়া হচ্ছে আর অন্য একটায় আটক দেখানো হচ্ছে। বিচার বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় আমরা সুবিচার পাচ্ছি, আবার কিছু কিছু জায়গায় পাচ্ছি না। বেগম খালেদা জিয়াকে যেভাবে রাখছে এটা একটা গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ।
 
ব্রেকিংনিউজ: আপনার মতে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আসল বাধা কোথায়?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আসল বাধা হচ্ছে সরকার। সরকার ইচ্ছা করলেই বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে পারে, এতে আইনের কোনো বাধা নাই।


 
ব্রেকিংনিউজ: সম্প্রতি সময়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের প্রভাবটা বাংলাদেশের উপরে বেশি পড়ছে এর কারণটা কি?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: এর কারণ হলো নির্বাচন। আগামী নির্বাচনের কারণেই এ প্রভাব বাড়ছে। ভারত আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র, প্রতিবেশী রাষ্ট্র। মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা সাহায্য করেছে কিন্তু তারা বর্তমান সরকারকে নিয়ে যেভাবে কথা বলেছে তাতে মনে হচ্ছে শেখ হাসিনা সারা জীবন সরকারে থাকবে। তবে ভারত একটি বড় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র, তারা বাংলাদেশের অন্যায়-অবিচার হলে তারা সাহায্য করবে এটা আমি মনে করি না।
 
ব্রেকিংনিউজ: জামায়াত আপনাদের শরিকদল তারা আপনাদের ২০ দলীয় জোটকে বিতর্কিত করেছে কিনা?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: আমি মনে করি না জামায়াত বিতর্কিত করছে। কারণ ভারত একটি হিন্দু রাষ্ট্র তারা যদি সেক্যুলার না হয় হিন্দুরাষ্ট্র গঠন করতে পারে, তাহলে আমাদের কি সমস্যা? আমি জামায়াতের কোনো সমস্যা দেখি না, আমার কাছে কোনো সমস্যা নেই। জামায়াত যদি সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে তাদেরকে  ব্যান্ড করে দিক, তাদের তো ব্যান্ড করছে না। তারা যখন নির্বাচন করছে তাদের ধরছেন-মারছেন। এটা একটা ইস্যু, ইস্যুটা হলো সম্পূর্ণ সরকারের। এটা একটি রাজনৈতিক ইস্যু তাছাড়া অন্য কিছুই না। ইস্যুটাকে জিয়েই রাখা হচ্ছে।
 
ব্রেকিংনিউজ: অনেকগুলো দল জাতীয় ঐক্যে আসতে চাচ্ছে এবং তারা বলছেন যদি জামায়াত না থাকে তাহলে তারা জাতীয় ঐক্য করবে। যদি জাতীয় ঐক্যে  জামায়াত বাদ দেয়া হয় তাহলে আপনারা কি করবেন?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: তখন আমিও চিন্তা করবো এই প্রক্রিয়ায় থাকবো কিনা। আমার চিন্তা করতে হবে ভোটের কথা, জামায়াতের তো অবশ্যই ভোট আছে। আর জামায়াতের নেতার ছেলের সাথে মুক্তিযোদ্ধার মেয়ের বিয়ে হয় নাই? সারা বাংলাদেশে জরিপ করলে দেখা যাবে আত্মীয় সবাই সবার। তাহলে জামায়াতের ভোট কোথায় যাবে? আমি মনে করি এটা একটি আন্তর্জাতিক চক্রান্ত, হ্যাঁ তবে বৃহৎ কোনো ঐক্য করলে সমস্যা নেই। একজনকে আনবো আরেকজনকে বের করে দিবো তাহলে লাভ কি হলো? আমরা যে যাই মনে করি না কেন জামায়াত তো একটি রাজনৈতিক দল তাদেরও তো ভোট আছে। জাতীয় ঐক্য করেন ভালো কথা, জাতিকে রক্ষা করার জন্য জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন, তবে কাউকে বাদ দিয়ে না। জাতীয় ঐক্য করলে সবাইকে নিয়ে করতে হবে। কাউকে বাদ দিয়ে করলে তাহলে তো সেটা জাতীয় হলো না। জাতীয় ঐক্যের জন্য বিকল্পধারাকে আনবেন আর জামায়াতকে বাদ দেবেন তাহলে লাভ কি হলো?
 
ব্রেকিংনিউজ: এত পেশা থাকতে রাজনীতি বেঁচে নিলেন কেন?
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: আমি রাজনীতিতে এসেছি দেশকে ভালোবাসার জন্য, দেশের মানুষকে ভালোবাসার জন্য, দেশের মানুষের উপকার করার জন্য, দেশের মানুষ যাতে সবসময় ভালো থাকে সে কাজটা যেনো করতে পারি সেজন্য, আমার রাজনীতিতে আসা তাছাড়া অন্য কোনো কারণে নেই।
 
ব্রেকিংনিউজ: সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।
 
খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা: ব্রেকিংনিউজ পরিবারকেও অসংখ্য ধন্যবাদ।
 
ব্রেকিংনিউজ/ এএইচ/ এসএ

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2