শিরোনাম:

নীল রঙের উপমা যে নীল রঙই

জিয়াউদ্দিন সাইমুম
১২ জুন ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 9:52 আপডেট: 9:54
নীল রঙের উপমা যে নীল রঙই<br />

ডাচ পোস্ট-ইমপ্রেশনিস্ট ভিনসেন্ট ভ্যানগঘ তাঁর এক চিঠিতে লিখেছেন ‘হলুদ আর কমলা রঙ ছাড়া নীলের অস্তিত্বই নেই। নীলে হলুদ আর কমলা তো আছেই। কিন্তু নীল রঙের উপমা যে নীল রঙই।’ ইংলিশ রোমান্টিক লেখক জন রাসকিন তাই বলতেন, ‘আনন্দের উৎস হিসেবে দেবতারা চির অমলিন নীল রঙকেই বেছে নিয়েছেন।’
 
প্রাচীন ফ্রেঞ্চ শব্দ bleu থেকে ইংরেজি blue শব্দটি এসেছে। এটাকে প্রাথমিক রঙগুলোর একটি ধরা হয়। ইংরেজি ভাষায় বরফ, পানি, আকাশ, ঠাণ্ডা, শান্ত ও দুঃখের অনুভূতি বোঝাতে নীল রঙ নির্দেশিত হয়। যেমন He is feeing blue. কারণ বৃষ্টি অথবা ঝড়ের সাথে নীল রঙের সম্পর্ক রয়েছে।

গ্রিক মিথলজি মতে, দেবতা জিউস দুঃখ পেলেই আকাশ থেকে বৃষ্টি ঝরাতেন আর রাগলে বজ্র সৃষ্টি করতেন।
 
আকাশ ও সাগরের পানি প্রায়ই নীল দেখায়। আফ্রিকান-আমেরিকানদের এক ধরনের মিউজিক স্টাইলও ‘ব্লুজ’ নামে পরিচিত।
 
নীল ও সাদা হচ্ছে ফিনল্যান্ড, গ্রিস, ইসরাইল, স্কটল্যান্ড ও নিকারাগুয়ার জাতীয় পতাকার রঙ। শুধু তাই নয়, বিশ্বের অনেক দেশের জাতীয় পতাকায় লাল বা অন্য রঙের সাথে নীল রঙ রয়েছে।
সেক্যুলারিজমের রঙকেও নীল ধরা হয়। বিশ্বের অনেক রাজনৈতিক দলের দলীয় রঙও নীল। ষাটের দশকের শুরুতে টিভিতে আমেরিকান বিমান বাহিনীর প্রচারিত জিঙ্গেল বেশ সাড়া জাগায়:
 
Thez took the blue from the skies,
And the prettz girls ezes
And touch the Old Glorz too;
And gave it to the men
Who proudlz wear the U.S. Air Froces Blue!
 
নীল রঙ অনেকেরই প্রিয়। এটা নাকি বিশ্বস্ত ও নির্ভরশীল। ইন্ডিগো বা ডিপ ব্লু রঙকে জ্ঞানের রহস্যময় সীমানার প্রতীক ধরা হয়। এ রঙ লৈঙ্গিক নিরপেক্ষ। নারী-পুরুষ এ রঙ ভালোবাসে।
 
বিশ্ব-সংস্কৃতিতে রয়েছে নীলের প্রভাব। চীনারা মনে করে জঙ্গল, পূর্ব দিক ও বসন্ত ঋতুর সাথে রয়েছে নীল রঙের গভীর যোগাযোগ। ইরানে নীল, নীল-সবুজ ও সবুজ রঙ পবিত্র বিবেচিত। তারা মনে করে, এ রঙ তিনটি স্বর্গের প্রতীক।
 
হিন্দুরা তাদের দেবতা কৃষ্ণের চামড়াকে প্রায় নীল হিসেবে উপস্থাপন করে। আমেরিকায় ডাকবাক্সের রঙ সাধারণত নীল রঙের হয়। মেক্সিকোয় নীল হলো শোকের প্রতীক। আজটেক সভ্যতায় নীল রঙ কোন কিছু উৎসর্গের প্রতীক বিবেচিত হত। গ্রিকরা এখনো শয়তানের কুনজর থেকে বাঁচতে নীল রঙের নেকলেস বা ব্রেসলেট পরে।
 
বিশ্বের অনেক বিখ্যাত মসজিদ নীল রঙের। যেমন ইরানের তাবরিজ, মিসরের কায়রো, আফগানিস্তানের মাজার-ই-শরীফ, তুরস্কের ইস্তাম্বুল ও মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরের নীল মসজিদ। ক্যাথলিকরাও ভার্জিন মেরির পোশাকের রঙ নীল হিসেবে উপস্থাপন করে।
 
ব্রেকিংনিউজ/জিসা
 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2