শিরোনাম:

মেধাবী নাজমুলের মুখে হাসি নেই

নিউজ ডেস্ক
২১ জুলাই ২০১৮, শনিবার
প্রকাশিত: 5:23
মেধাবী নাজমুলের মুখে হাসি নেই

অন্যের জমিতে শ্রমিক হিসেবে খেটে লেখাপড়া চালিয়ে আসা নাজমুলের মুখে হাসি নেই। কারণ চিন্তা এখন উচ্চশিক্ষা নিয়ে। মেধাবী এ ছাত্রের ইচ্ছা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার। কিন্তু দরিদ্র নাজমুল কীভাবে উচ্চশিক্ষার এত খরচ বহন করবে তা নিয়েই ভাবতে হচ্ছে তাকে। এমনকি ঢাকা আসা-যাওয়ার টাকাও নাকি জোগাড় করতে পারছেন না তিনি। 

বছর কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার হালসা ডিগ্রি কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পাওয়া একমাত্র ছাত্র নাজমুল হক। নাজমুলের বাড়ি উপজেলার কুর্শা ইউনিয়নের মাজিহাট গ্রামে। দরিদ্র কৃষক বাবা আজিজ হোসেন ও মা গৃহিণী নাছিমা খাতুনের একমাত্র সন্তান সে। 

আজিজ হোসেনের নিজের জমি বলতে শুধু ভিটেটুকু। তাই ভূমিহীন কৃষক আজিজ হোসেন সারাবছর অন্যের জমিতেই শ্রমিক হিসেবে খাটেন। তাও নিয়মিত কাজ থাকে না। 

কলেজ সূত্র জানিয়েছে, নাজমুল ভর্তির পর থেকেই প্রতিটি পরীক্ষায় ভালো ফল অর্জন করেন। এতে শিক্ষকদের নজরে পড়ে যান। তবে একেবারে হতদরিদ্র হওয়ায় তার পক্ষে কলেজের বেতন ও পরীক্ষার ফি দেওয়া সম্ভব ছিল না। তাই নাজমুলের প্রতিভার কারণে শিক্ষকরা সব ফি মওকুফ করে দেন। 

নাজমুল জানান, এলাকার মানুষের সহযোগিতায় এতদিন পড়ালেখা করে এলেও তার চিন্তা এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নিয়ে। তার স্বপ্ন ঢাকা বা অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া। কিন্তু শহরে গিয়ে পড়াশোনার এত খরচ কীভাবে বহন করবেবন তা বুঝে উঠতে পারছেন না তিনি। হালসা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ জহিরুল ইসলাম বলেন, নাজমুল মেধাবী ছাত্র। একটু সহযোগিতা পেলে সে সামনে অনেক ভালো করবে। সামনে কোনো সহযোগিতা লাগলে প্রয়োজনে আমরাও করব। 

মিরপুরের ইউএনও জামাল আহমেদ বলেন, উপজেলা থেকে মাত্র ৩ জন জিপিএ ৫ পেয়েছে। তার মধ্যে নাজমুল অন্যতম। তার জন্য আমরা সব সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত আছি। 

ব্রেকিংনিউজ/ এমজি

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2