শিরোনাম:

শাটলের ‘বগির’ দাবিতে উত্তাল চবি

মিনহাজ তুহিন, চবি প্রতিনিধি
৯ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 8:32 আপডেট: 8:36
শাটলের ‘বগির’ দাবিতে উত্তাল চবি

চবির শাটল ট্রেনের বগি বাড়ানোসহ ৬ দফা দাবিতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশে উত্তাল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি)। বুধবার (৮ আগস্ট) শাটল ট্রেনে কাটা পড়ে সমাজতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী রবিউল আলম দুই পা হারালে ফেসবুক ভিত্তিক একটি ইভেন্ট থেকে ৬ দফা দাবিতে আন্দোলনের ডাক দেয় চবি ছাত্রলীগ।

এতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা সংহতি জানিয়ে অংশ নেয়। এসময় তারা ‘এক দফা, এক দাবি, শাটলে বাড়াও বগি’, ‘শিক্ষকদের এসি বাস, শাটলের সর্বনাশ’ সহ বিভিন্ন ধরনের স্লোগানে দেয়। শিক্ষার্থীরা হাতে লেখা বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড নিয়ে সমাবেশে আসে। 

বৃহস্পতিবার (০৯ আগস্ট) দুপুর ১২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘কিছুদিন আগে শিক্ষকদের জন্য নতুন সাতটি এসি বাস আনা হয়। আমাদের তাতে আপত্তি নেই। কিন্তু শাটল ট্রেনে কেন বগি বৃদ্ধি করা হচ্ছে না, আমরা তা জানতে চাই। কেন শাটল ট্রেনে যাত্রী বগীর বদলে মাল বগী দেয়া হয়। যেখানে শিক্ষার্থীরা ঠিকমত যাতায়াত করতে পারে না সেখানে বহিরাগতদের আনাগোনা কেন থাকবে?’

বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একসময় শাটল ট্রেন দেখতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ আসতো। আজকে সেই শাটলের এমন জীর্ণদশা কেন? আমরা অবিলম্বে শাটলের সেই ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার দাবি জানাই। 

সমাবেশে ছাত্রলীগ নেতা ফজলে রাব্বী সুজনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, মোঃ আলমগীর টিপু, মোঃ মনছুর, ইকবাল হোসেন টিপু, ওমর ফারুক, আবু তোরাব পরশ, সৌমেন দাশ, জুয়েল আলম, রকিবুল হাসান দিনার, প্রদীপ চক্রবর্তী দূর্জয়, সাবরিনা চৌধুরীসহ আরো অনেকে।

এদিকে মানববন্ধনে যোগ দিতে সকাল থেকে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা হাতে লেখা বিভিন্ন ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে জড়ো হতে থাকে। এক পর্যায়ে তা জনসমুদ্রে রূপ নেয়। এর আগে সকাল সাড়ে ৭ টায় ও ১১ টায় নগরীর ষোলশহর রেলওয়ে স্টেশনে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আরো দু’টি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন থেকে উত্থাপিত দাবিগুলো হল,

১. নতুন বগি সংযোজন করা ও প্রতিটি ট্রেনে কমপক্ষে ১২ টি বগি নিশ্চিত করা।
২. পুরোনো শাটল ট্রেন সংস্কার করা, মালবাহী বগি বাদ দেয়া।
৩. ডেমু ট্রেনের জানালাগুলো সংস্কার করা।
৪. রাতের শাটল ট্রেনের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। 
৫. শাটল ট্রেনের সংখ্যা বাড়াতে হবে, নতুবা শাটল বাস চালু করা। 
৬. নিরাপদ প্ল্যাটফর্ম সংস্থাপন করা।

ব্রেকিংনিউজ/এসএএফ

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2