শিরোনাম:

বাংলাদেশে ক্যান্সার আক্রান্তের সংখ্যা কেন বাড়ছে?

স্বাস্থ্য ডেস্ক
৭ অক্টোবর ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 8:32
বাংলাদেশে ক্যান্সার আক্রান্তের সংখ্যা কেন বাড়ছে?

বিশ্বজুড়েই ক্যান্সার আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। প্রতি পাঁচজন পুরুষের মধ্যে একজন আর প্রতি ছয়জন নারীর মধ্যে একজন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে- জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ক্যান্সার আক্রান্ত মানুষের সংখ্যাও বেড়েছে। এক্ষেত্রে জীবনযাপনের মানকেই বিবেচ্য হিসেবে দেখছেন গবেষকরা। 

এ সংক্রান্ত এক জরিপে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের শেষ নাগাদ বিশ্বে মোট ১ কোটি ৮১ লাখ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হবে। যাদের মধ্যে ৯৬ লাখ মানুষ মারা যাবে। বিশ্বে এই মোট মৃত্যুর অর্ধেকই হবে এশিয়ার দেশগুলোতে। যেখানে তালিকায় অনেক দেশের উপরে রয়েছে বাংলাদেশের নাম। 

সম্প্রতি ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যানসার (আইএআরসি) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে নতুন করে ১ লাখ ৫০ হাজার ৭৮১ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারে। এর মধ্যে পুরুষদের সংখ্যা হবে প্রায় ৮২ হাজার ৭১৫ জন ও নারীদের সংখ্যা হতে পারে ৬৭ হাজার ৬৬ জন। এ তালিকায় মুখ, ফুসফুস, ব্রেস্ট ও জরায়ু মুখের মতো ক্যান্সারের প্রবণতা বেশি। 

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ২০১৮ সালের শেষ নাগাদ ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে প্রায় ১ লাখ ৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হবে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ঝুঁকিতে নারীদের স্তন ক্যান্সার। জরায়ু মুখ ও গল ব্লাডারের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও যথেষ্টই।

তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশে এখনও পুরুষের তুলনায় নারীদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা কম। তবে দিন দিন এ ব্যবধান কমে আসছে। নারীরাও এখন অনেক বেশি ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন। 

গবেষকদের জরিপে উঠে এসেছে, বিশ্বের অন্তত ২৮টি দেশে ক্যান্সার আক্রান্ত নারীদের মৃত্যুর প্রধান কারণ ফুসফুসের ক্যান্সার। এছাড়া নারীদের ব্রেস্ট ক্যান্সারও রয়েছে। তবে মেয়েদের মধ্যে ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সংখ্যা বাড়ছে। বিশ্বব্যাপী মেয়েদের মধ্যে ধূমপানের প্রবণতা বাড়ার কারণে তাদের ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হারও বাড়ছে। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র, হাঙ্গেরি, ডেনমার্ক, চীন এবং নিউজিল্যান্ডের মতো দেশগুলোতে এ প্রবণতা বেশি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশের জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ড. হাবিবুল্লাহ তালুকদার (রাসকিন) গণমাধ্যমকে বলেন, ‘নারীদের মধ্যে ক্যান্সার আক্রান্তের হার বাড়ার বড় কারণ উশৃঙ্খল জীবনযাপন। বাংলাদেশের মেয়েরা এখন অবাধে ধূমপান, মদ্যপান, মাদক সেবন করছেন। এছাড়া দেশের নারীদের একটি বড় অংশ পানের সঙ্গে জর্দা, সাদাপাতা বা এ ধরণের তামাকজাত খেয়ে থাকেন।’ 

এছাড়া বাচ্চাকে বুকের দুধ না খাওয়ানো, অনিয়মিত খাবার বা ফ্যাটি খাবার খাওয়াও ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হার বৃদ্ধির বড় কারণ বলে মনে করেন তিনি।

সঠিক সময়ে ক্যান্সারের লক্ষণগুলো ধরতে না পারা বা চিকিৎসকের কাছে যেতে না পারায় বাংলাদেশে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। 

তবে সব মিলিয়ে দেশে ক্যান্সার সম্পর্কে গণসচেতনতা আগের চেয়ে বহুগুণ বেড়েছে বলেও বিভিন্ন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এ বিষয়ে সরকারি পর্যায়ে আরও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি- এমনটিও মনে করেন গবেষক ও চিকিৎসকরা।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2