শিরোনাম:

শিশুর স্মার্টফোন আসক্তি কাটাবেন যেভাবে

লাইফস্টাইল ডেস্ক
১০ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 4:47
শিশুর স্মার্টফোন আসক্তি কাটাবেন যেভাবে

মানুষ এখন অনেক বেশি স্মার্টফোন নির্ভর হয়ে যাচ্ছে। স্মার্টফোনে নানা ধরণের গেম তথা বিনোদন সেবা ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেই কেটে যায় দিনের বড় একটি সময়। অনেকের আবার ইমেইলসহ নানা ধরণের দাপ্তরিক কাজও থাকে। কিন্তু ইদানীং বাচ্চাদের মধ্যে স্মার্টফোন ব্যবহার প্রচুর বেড়ে গেছে। এটি অনেক বাচ্চারই আসক্তির পর্যায়ে চলে গেছে। 

বাচ্চারা টিভির পরিবর্তে ইউটিউবেই আজকাল কার্টুন দেখে। চিকিৎসকদের মতে, এই প্রবণতা থেকে একাধিক রোগও মাথাচাড়া দিচ্ছে শিশু শরীরে। খেলাধুলা না করে স্মার্টফোন ব্যবহারের ফলে অনেক বাচারাই মুটিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া চোখ শুষ্ক হয়ে যাওয়া, মাথা ব্যথা, দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দিচ্ছে তাদের। এই সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি দিতে তাই স্মার্টফোন থেকে শিশুদের দূরে রাখারই পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা৷

চিকিৎসকরা শিশুদের বই, খেলাধুলা নিয়ে ব্যস্ত থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন। তাদের মতে, শিশুকে সারাদিনে এক-দু’ঘণ্টার বেশি স্মার্টফোন ব্যবহার করতে না দেওয়াই ভাল। ২০ মিনিট স্মার্টফোন ব্যবহারের পর শিশুদের কুড়ি সেকেন্ড চোখের পাতা খোলা ও বন্ধ করারও পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। ছোট থেকেই দীর্ঘক্ষণ স্মার্টফোন ব্যবহারের জেরে অন্ধত্বের মতো গুরুতর কোনও সমস্যাও দেখা দিতে পারে বলেও মত তাদের।

জোর করে নয়, শিশুকে বুঝিয়ে স্মার্টফোন ব্যবহার থেকে বিরত রাখুন। শিশুকে স্মার্টফোন ব্যবহার ভাল মন্দগুলো ভাল করে বুঝিয়ে বলুন। বোঝান যে ভবিষ্যতে চোখের সুস্থতার জন্য বর্তমানে স্মার্টফোন ব্যবহার কম করাই ভাল। এরপর দেখবেন নিজে নিজেই স্মার্টফোন থেকে দূরে সরে গিয়েছে আপনার আদরের শিশুটি।

শিশুকে একা থাকতে দেখবেন না। সময় পেলে বিকেলে তাকে নিয়ে খেলতে বের হন। ঘুমের উপর সবচেয়ে প্রভাব ফেলে আপনার স্মার্টফোন। তাই শোয়ার ঘরে তা না রাখাই ভাল৷ বরং ঘুমোতে যাওয়ার আগে আপনার বাচ্চার সঙ্গে গল্প করুন। রূপকথার কাহিনি বা তার স্কুলে বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে আলোচনা করুন দুজনে। তাহলে দেখবেন স্মার্টফোন ভুলে, আপনার সঙ্গে গল্প করতেই ব্যস্ত রয়েছে সে৷

ব্রেকিংনিউজ/জেআই

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2