সংবাদ শিরোনামঃ

তারেকের এপিএস অপু রিমান্ডে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১০ জানুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ০৭:৫৯ আপডেট: ০৮:০৮

তারেকের এপিএস অপু রিমান্ডে

‘ভোটের আগে টাকা ছড়ানোর’ মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিয়া নূরুদ্দীন আহম্মেদ অপুকে পাঁচ দিন সিআইডি হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত। একাদশ সংসদ নির্বাচনে শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-ভেদরগঞ্জ-গোসাইরহাট) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী অপুকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতাল থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) পুলিশের রিমান্ড ও অপুর জামিন আবেদনের শুনানি করে ঢাকার মহানগর হাকিম সারাফুজ্জামান আনসারী এই আদেশ দেন।

পরে তাকে মতিঝিল থেকে আট কোটি টাকা উদ্ধারের ঘটনায় মুদ্রা পাচার ও সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক আশরাফুল ইসলাম অপুকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, ‘এ আসামি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ ও দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য সমগ্র কার্যক্রম পরিচালনা করার মূল হোতা ও নিয়ন্ত্রক। তার সহযোগীদের গ্রেফতার করাসহ ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।’

অপুর পক্ষে তার আইনজীবী মজিবর রহমান দুলাল রিমান্ডের বিরোধিতা করে জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান। শুনানি শেষে বিচারক জামিন নাকচ করে অপুকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।

ভোটের মাত্র চার দিন আগে মতিঝিলে ইউনাইটেড এন্টারপ্রাইজ ও ইউনাইটেড করপোরেশনে অভিযান চালিয়ে ওই কোম্পানির এমডি এ এম আলী হায়দারকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। ওই প্রতিষ্ঠান থেকে ৩ কোটি ১০ লাখ ৭৩ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

পরে হায়দারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পল্টনের হাউজ বিল্ডিং রোডের বায়তুল খায়ের টাওয়ারের সিটি মানি এক্সচেঞ্জ থেকে আরও ৫ কোটি টাকা জব্দ করা হয়।

এছাড়া গুলশানে অপুর ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান আমেনা এন্টারপ্রাইজ অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড থেকে ৪ লাখ ৬৫ হাজার ৬৫০ টাকাসহ জয়নাল আবেদীন এবং আলমগীর হোসেন নামে আরও দুজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

ব্রেকিংনিউজ/এসএসআর