সংবাদ শিরোনামঃ

বাম জোটের অভিযোগ অবান্তর: কাদের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার
প্রকাশিত: ০১:৫৯ আপডেট: ০৬:১৯

বাম জোটের অভিযোগ অবান্তর: কাদের

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের অভিযোগ অবান্তর বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন,  নির্বাচন নিয়ে দেশে-বিদেশে কোন প্রকার বিতর্ক নেই। এবারই প্রথম সরকার গঠনের আগে গণতান্ত্রিক দেশগুলোর সমর্থন এবং শুভেচ্ছা আমাদের প্রধানমন্ত্রীর পেয়ে গেছেন। উন্নত দেশগুলো সরকার গঠনের আগেই কিন্তু অভিনন্দন জানিয়েছে। কাজেই এ ধরনের দাবি অবান্তর।

শনিবার (১২ জানুয়ারি) রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে বিআরটিএ’র মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।  

কাদের বলেন,  নির্বাচন নিয়ে আন্তর্জাতিক বিশ্ব থেকে আমরা কোন প্রশ্ন এখন পর্যন্ত পাইনি। নির্বাচনে হেরে গেছে বলেই তারা (বাম জোট) প্রশ্ন-অভিযোগ তুলছেন। তাদের অভিযোগের কোন বাস্তবতা নেই, কোন যৌক্তিকতা নেই। দেশে-বিদেশের কোন স্বীকৃতি নেই। নির্বাচনে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়েছে।

তিনি বলেন, আপনারা জনগণের মতামত নিতে পারেন। জনগণের কোন প্রশ্ন নেই।  প্রশ্ন আছে শুধু বিরোধী মতের কিছু রাজনৈতিক দলের। তাদের কাছে প্রশ্ন থাকবেই। বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখতে হলে গরম কথা বলতে হবে। 

আওয়ামী লীগের কাউন্সিল নির্ধারিত সময়ে আগে হবে কি না জানতে চাইলে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, কাউন্সিল আগে কিভাবে হবে? কাউন্সিল অক্টোবর মাসেই হবে।

বিআরটিএর অভিযান প্রসঙ্গে কাদের বলেন, মাঝখানে নির্বাচন থাকায় বিআরটিএর অভিযান স্থগিত ছিল। যে কারণে অনিয়ম বেড়ে গেছে। আজকে ২ ঘণ্টার মধ্যেই ৯৮ হাজার টাকা জরিমানা ৮টি গাড়ির জব্দ এবং তিন জনের জেল ও ৪২ টি মামলা করা হয়েছে। এই অভিযান নিয়মিত চলবে। 

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে বাম গণতান্ত্রিক জোট আয়োজিত ‘ভোট ডাকাতি, জবর দখল ও অনিয়মের নানা চিত্র’ শীর্ষক গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। গণশুনানিতে আট বাম দলের ১৩১ প্রার্থী অংশ নেন।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেওয়া বাম দলগুলোর প্রার্থীরা এই শুনানিতে তাদের অভিজ্ঞতা ও অভিযোগ তুলে ধরেন। তাদের সবাই অভিযোগ করেছেন ভোটের আগের রাতে ভোট চুরি করা হয়েছে। 

তারা দাবি করেন, কেন্দ্র দখল করে ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ ব্যালটে নৌকায় সিল মেরে বাক্স ভরে রাখে ক্ষমতাসীনরা। ভোটের দিন ৩০ ডিসেম্বর অধিকাংশ জায়গায় সাধারণ ভোটারদের কেন্দ্রেই যেতে দেয়া হয়নি। এছাড়া, হামলা, সহিংসতা ও জালিয়াতির অভিযোগ দেয়া হলেও প্রতিকারে তেমন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন।

ব্রেকিংনিউজ/আরএইচ/এনকে