সংবাদ শিরোনামঃ

শীতকাল মুমিনের জন্য বসন্তকাল

ধর্ম ডেস্ক
১১ জানুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার
প্রকাশিত: ১২:৪২

শীতকাল মুমিনের জন্য বসন্তকাল

হাড় কাপানো শীতে অনেকেই কম্বলের নিচেই থাকতে পছন্দ করে। এই শীত উপেক্ষা করে মুমিনরা আল্লাহর ইবাদাত-বন্দেগী করে থাকেন। শীতকাল বলা হয় মুমিনের বসন্তকাল। স্বয়ং নবীজি (সা.) এ ঘোষণা দিয়েছেন। 

বিশিষ্ট সাহাবি আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে এসেছে, মহানবী (সা.) বলেন, (الشتاء ربيع المؤمن) ‘শীতকাল হচ্ছে মুমিনের বসন্তকাল।’ (মুসনাদে আহমাদ : ১১৬৫৬)।

অন্য বর্ণনায় রয়েছে, ‘শীতের রাত দীর্ঘ হওয়ায় মুমিন রাত্রিকালীন নফল নামায আদায় করতে পারে এবং দিন ছোট হওয়ায় রোযা রাখতে পারে।’ (শুআবুল ঈমান লিল বায়হাকি : ৩৯৪০)। 

নবীজি (সা.) ছাড়াও সাহাবায়ে কেরামগণ শীতকালের গুরুত্বের কথা বলেছেন।

হযরত ওমর (রা.) বলেন,

قال عمر رضي الله عنه : الشتاء غنيمة العابدين .

‘শীতকাল ইবাদতকারীদের জন্য (ইবাদত করার) চমৎকার মৌসুম।’ (বিশুদ্ধ সনদে আবু নুআইম)

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন,

قال ابن مسعود رضي الله عنه : مرحباً بالشتاء تتنزل فيه البركة، ويطول فيه الليل للقيام، ويقصر فيه النهار للصيام .

‘শীতকালকে স্বাগতম । এ সময় (আল্লাহর পক্ষ থেকে) বরকত নাযিল হয়। রাত হয় লম্বা। তাই তাহাজ্জুদ পড়া সহজ। দিন হয় ছোট। তাই রোযা রাখা সহজ।’ (লাতা-ইফুল মাআরিফ, আল্লামা ইবনে রজব)।

হযরত আবু হুরায়রা (রা.) লোকদের বলতেন,

ألا أدلكم على الغنيمة الباردة ، قالوا : بلى، فيقول : الصيام في الشتاء

‘‘আমি কি তোমাদেরকে শীতকালীন গনীমতের সন্ধান দিব না? তারা বলতো, অবশ্যই! অতঃপর আবু হুরায়রা (রা.) বলতেন, শীতের মৌসুমে রোযা।’’ (সুনানে তিরমিযি, আলবানী হাদিসটিকে সহীহ বলেছেন)।

ব্রেকিংনিউজ/জেআই