মাল্টা চাষে দিন বদলের স্বপ্ন দেখছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তরুণরা

মাজহারুল করিম অভি, ব্রাহ্মনবাড়িয়া প্রতিনিধি
২০ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৬:২৭

মাল্টা চাষে দিন বদলের স্বপ্ন দেখছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তরুণরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাগানের সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে ঝুঁলছে সবুজ রঙের কাঁচা মাল্টা। ছোট-বড় মিলে পুরো বাগানেই মাল্টার ছড়াছড়ি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় এসব মাল্টার রং এখন সবুজ। ইতোমধ্যে বাগানের সবগুলো গাছেই মাল্টার ভাল ফলন হয়েছে। আবার কোনো কোনো গাছে ব্যাপক ফলন হয়েছে।  

উপজেলা কৃষি বিভাগ জানায়, আবহাওয়া ভাল হওয়ায় মাল্টার চাষ ভাল হয়েছে। মাল্টা চাষে চাষিদের খরচও কম লাগে এবং লাভও অধিক। তাই কৃষকদের অর্থনৈতিকভাবে মনোন্নয়নে বিরাট ভূমিকা রাখছে আখাউড়ায় উৎপাদিত এ মাল্টা। তাছাড়া আখাউড়া উপজেলার এ মাল্টা দেশের বিভিন্ন স্থানে রফতানি হচ্ছে। তাই এবার উপজেলা কৃষকদের পাশাপাশি স্বল্পপুঁজিতে বেশি ভাল হওয়ার আশায় ভাগ্য বদলের চেষ্টা চালাচ্ছে তরুণরাও। পতিত জমি, বাড়ির ছাঁদে মাল্টা চাষ করে পেয়েছে সফলতা। 

উপজেলার দক্ষিণ ইউপি কালিনগর গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘গত দুই বছর আগে পাওয়া মাল্টা ও কমলার চারা বাড়ির ছাদে লাগাই। এক বছরের মধ্যে ভালো ফলনের দেখা মেলে। প্রতিটি গাছে ১৬০-২০০ টি মাল্টা ধরেছে। আশা করা যায় ২০-২৫ দিনের মধ্যেই মাল্টাগুলো পাকতে শুরু করবে।’

একই গ্রামের সালাম চৌধুরী বারি-১ জাতের মালটা বাড়ির পাশের পতিত জমিতে চারা লাগিয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি জানান, এর মধ্যে কয়েকটি গাছে মালটা ফলন দেখা যাচ্ছে। ফলনে উন্নতি থাকায় গ্রামের আরও অনেকেই মাল্টা চাষে আগ্রহ প্রকাশ করছে। এই মাল্টা চাষের মধ্যে অনেক বেকার তরুণরা তাদের ভাাগ্য বদলের চেষ্টা চালাচ্ছে।’
 
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহানা বেগম বলেন, ‘আখাউড়ায় এই মৌসুমে অনেকেই বারি-১ জাতের মাল্টা চাষ করছে। অন্যান্য জাতের মালটা রং ভিন্ন হলেও এই মালটার রং সবুজ। খেতেও ভাল। তাই উপজেলা কৃষি বিভাগ মাল্টা চাষিদের সব রকমের সহযোগিতা করে যাচ্ছে। আনোয়ার ও সালামের মত অনেকেই নিজের মতো করে মাল্টার বাগান গড়ে তুলছে। কারণ এসব মাল্টার চাহিদা অন্য জাতের থেকে বেশি। তাই সহজেই বাজারজাত ও রফতানি করা যায়।’

তিনি বলেন, ‘আখাউড়ায় মাল্টা চাষ বাড়াতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে বিনামূল্যো মাল্টা চারাগাছ বিতরণ করে উদ্বুদ্ধ করছে।  সরকার সাইট্রাস ভিলেজ প্রজেক্টের আওতায় কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে মাল্টা চারা বিতরণ করছে। এছাড়া অনেক কৃষক ব্যক্তিগত উদ্যোগেও মাল্টা-কমলা চাষ করছেন। এখানকার মাটি চাষের উপযোগী হওয়ায় ফলনও ভাল হবে। মালটা চাষের ক্ষেত্রে কৃষকদের সার্বিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে।’

ব্রেকিংনিউজ/জেআই