নাটোরে পদ্মার পানিতে তলিয়ে গেছে ফসল

জেলা প্রতিনিধি
৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
প্রকাশিত: ০৩:৩৯ আপডেট: ০৩:৩৯

নাটোরে পদ্মার পানিতে তলিয়ে গেছে ফসল

পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নাটোরের লালপুর উপজেলার চরাঞ্চলের প্রায় এক হাজার একর জমিতে সবজিসহ নানা ধরনের ফসল ডুবে গেছে।

উপজেলার নওসারা সুলতানপুর, দিয়াড়শঙ্করপুর, চাকলা বিনোদপুর, আরাজি বাকনাই, রসুলপুর, বাকনাই, বন্দোবস্ত গোবিন্দপুর ও লালপুর চরের শীতকালীন আগাম সবজি মুলা, পুঁইশাক, লালশাক, বেগুন, লাউ, মাস কলাই ক্ষেত পানির নিচে তলিয়ে গিয়ে সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া আখ, পেঁপে, কলা, পেয়ারা, বরইসহ অন্যান্য ফসলের জমিও এখন পানির নিচে।

সোমবার (৩০সেপ্টেম্বর) পদ্মা নদীর চরাঞ্চল ঘুরে দেখা যায়, ফসলের মাঠ জুড়ে থৈ থৈ করছে পানি। সবজি ক্ষেতের চিহ্ন পর্যন্ত নেই। পেঁপে গাছের গোড়ায় পানি জমায় গাছ মরে নুয়ে পড়েছে। আখ, কলা, পেয়ারা, বরই ক্ষেত পানিতে পরিপূর্ণ। কোথাও কোথাও আখ গাছের মাথা দেখা যাচ্ছে শুধু।

উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, মাস কলাই, আগাম সবজি ও পেঁপের সর্বোচ্চ ক্ষতি হয়েছে। আখ, পেয়ারা, কলা ও বরই ক্ষেতের পানি নেমে গেলে এই ফসলগুলো রক্ষা পেতে পারে।

নওপাড়া এলাকার চাষি আরিফ হোসেন জানান, পদ্মার পানিতে তার সবজি বাগান তলিয়ে গেছে। পেঁপে গাছ মরে যাচ্ছে। পেয়ারা বাগানেও ২/৩ ফুট পানি উঠেছে। পানি নামলেও ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার সুযোগ হবে না।

বিলমাড়ীয়া এলাকার রফিকুল ও সেকেন্দার বলেন, অনেক টাকা খরচ করে ৪ বিঘা জমিতে আগম মুলা চাষ করেছিলাম। পদ্মার পানিতে সব নষ্ট হয়ে গেছে। এখন পরিবার নিয়ে কি করব।

বিলমাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু বলেন, পদ্মার পানি বৃদ্ধিতে আমার এলাকার ৫-৭ টি চরের জমি তলিয়ে যাওয়ায় কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন।

উপজেলা কৃষি অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধিতে প্রায় ২২.২৫ হেক্টর সবজি ক্ষেত তলিয়ে সবজি নষ্ট হয়েছে। আখ ক্ষেতে পানি ঢুকলেও পানি নেমে গেলে তা স্বাভাবিক হয়ে যাবে। এছাড়া পানি নেমে যাওয়ার পরে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সঠিক ভাবে বলা যাবে বলে তিনি জানান।

লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যুতি বলেন, গতকাল আমি পদ্মার পানিতে ডুবে যাওয়া চরাঞ্চল পরিদর্শন করেছি। সেখানে শীতকালীন সবজিসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/এম