বইমেলায় উপচে পড়া ভিড়, কেনাবেচার হিড়িক

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক
৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শনিবার
প্রকাশিত: ০৮:৪২ আপডেট: ০৯:৩৯

বইমেলায় উপচে পড়া ভিড়, কেনাবেচার হিড়িক
ফটো: সালেকুজ্জামান রাজীব

চলছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা। বাঙালির প্রাণের এই মেলা ঘিরে ইতোমধ্যে দেশি-বিদেশি লেখক পাঠক ও সাহিত্যিকরা মেলাপ্রাঙ্গণে ছুটে আসতে শুরু করেছেন। অন্যদিকে শুক্র ও শনি এই দুই ছুটির দিনে দর্শনার্থীদেরও ঢল নেমেছে বইমেলায়। 

গতকালের মতো আজও বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান উভয় অঙ্গনেই নানা বয়সি ক্রেতা-বিক্রেতার জমজমাট উপস্থিতি চোখে পড়ে। নামিদামি প্রকাশনা সংস্থার প্যাভিলিয়নসহ ছোট বড় সব স্টলে পছন্দের বই খুঁজছেন ক্রেতারা।

আর মেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হওয়ার সময় প্রায় সবার হাতে হাতেই ছিল বই ও বইয়ের ব্যাগ।

শনিবার মেলা শুরু হয় সকাল ১১টায়। তার আগেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ছয়টি গেটের সামনে অসংখ্য অভিভাবকগণকে সন্তানদের নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে ভেতরে প্রবেশের জন্য অপেক্ষারত দেখা যায়। গেট খোলার পর পরই দলবেঁধে ভেতরে ঢোকে ছোট্টমনিরা। দুপুর পর্যন্ত মেলাপ্রাঙ্গণ ছিল শিশুদের আনাগোনায় মুখর। 

বিশেষত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সিসিমপুর কর্নারে অনেক শিশুই খেলায় মেতে উঠে। এছাড়াও শিশু কর্নারের ৫৭টি স্টলে শিশুরা অভিবাবকদের সঙ্গে তাদের পছন্দের বই কিনে মনের আনন্দে। 

বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে লোক সমাগম বাড়তে থাকে। বিকেলে দোয়েল চত্বর ও টিএসসির পথ বেয়ে আসা সব মানুষকেই দেহ তল্লাশি করে নিরাপত্তাকর্মীরা।

বইমেলার ৯ম দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক ২১৮টি নতুন বই প্রকাশ পেয়েছে। আর গত নয় দিনে নতুন মোট ১ হাজার ৩১৩টি নতুন বই প্রকাশিত হয়েছে। 

প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে রয়েছে ‘শহীদুল জহিরের উপন্যাস সমগ্র’ ও ‘শহীদুল জহিরের গল্পসমগ্র (কথা প্রকাশ), সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ‘প্রবন্ধসমগ্র’ (বিদ্যা প্রকাশনী)’ যতীন সরকারের প্রজ্ঞা প্রতিজ্ঞা প্রত্যয় (কথা প্রকাশ), আবদুল ওয়াহাবের ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ: রাষ্ট্রতত্ব ও বাঙালির স্ব-শাসন’ ও আনিস আহমেদের ‘জয় বঙ্গবন্ধু জয় শেখ হাসিনা’ (জোনাকী প্রকাশনী), সেলিনা হোসেনের ‘গল্পের নদীতে খেয়াঘাট’, হাবীবুল্লাহ সিরাজীর ‘ঈহা’, মুনতাসীর মামুনের ‘রাজার নতুন পোশাক’ ইমদাদুল হক মিলনের ‘ উপন্যাস ত্রয়ী (পাঞ্জেরী)’ উল্লেখযোগ্য।

এদিন সকাল ১০টায় মেলার মূলমঞ্চে বাংলা একাডেমি আয়োজিত শিশু-কিশোর সংগীত প্রতিযোগিতা এবং শিশু-কিশোর সাধারণ জ্ঞান ও উপস্থিত বক্তৃতার প্রাথমিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। তিনটি শাখায় এতে অংশ নেয় ১৩২ জন শিশু-কিশোর।

একই মঞ্চে বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় ‘লেখক-অনুবাদক আবদুল হক : জন্মশতবর্ষ শ্রদ্ধাঞ্জলি’ শীর্ষক আলোচনা সভা। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সৈয়দ আজিজুল হক। সভাপতিত্ব করেন সুব্রত বড়ুয়া। আলোচনায় অংশ নেন সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত, কবি সোহরাব হাসান ও গবেষক আহমাদ মাযহার প্রমুখ।

বাংলা একাডেমি আয়োজিত এ মেলা চলবে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এবারের মেলার মূল থিম নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বিজয় : ১৯৫২ থেকে ১৯৭১, নবপর্যায়’।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর