ক্যারিশমাটিক কামাল ও একজন অর্থমন্ত্রী

মাইদুল ইসলাম
৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৩:৪৬ আপডেট: ০৮:০৮

ক্যারিশমাটিক কামাল ও একজন অর্থমন্ত্রী

আ হ ম মোস্তফা কামাল বাংলাদেশের প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ও একজন ক্যারিশমাটিক ক্রিকেট সংগঠক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন তিনি। দেশের ১১তম অর্থমন্ত্রী মোস্তফা কামাল। গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি কুমিল্লা-১০ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে চতুর্থবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

মোস্তফা কামাল ১৯৪৭ সালের ১৫ জুন কুমিল্লা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মরহুম হাজী বাবরু মিয়া এবং মা মিসেস সায়েরা খাতুন। স্থানীয় দত্তপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬২ সালে এসএসসি, পরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ১৯৭০ সালে তদানিন্তন সমগ্র পাকিস্তানের চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্সি পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধা তালিকায় ১ম স্থান অর্জন করেন। 

এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৭ সালে কমার্সে সম্মান স্নাতক ডিগ্রি এবং ১৯৬৮ সালে অ্যাকাউন্টিংয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়া আইন শাস্ত্রেও তিনি স্নাতক ডিগ্রির অধিকারী। তিনি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালনে যেমন সফল, তেমনি একজন সফল ব্যবসায়ীও। রাজনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের পাশাপাশি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হিসেবেও খ্যাতি আছে যথেষ্ট। মেধার স্বীকৃতি হিসেবে শিক্ষাজীবনেই তিনি ‘লোটাস’ উপাধি পেয়েছিলেন।

রাজনীতিতে মোস্তফা কামালের হাতেখড়ি ছাত্রজীবন থেকেই। কলেজ জীবনের পুরো সময়ই তিনি ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯'র গণঅভ্যুত্থান এবং ৭০'র ঐতিহাসিক নির্বাচনের সময় তিনি তার এলাকায় আওয়ামী লীগের একজন বিশিষ্ট সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

লোটাস কামাল আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ১৯৯৬ সালে কুমিল্লা-৯ নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময়ে তিনি পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির সদস্য, বিনিয়োগ বোর্ডের সদস্য, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সদস্য, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য, যাকাত বোর্ডের সদস্য এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

মোস্তাফা কামাল ২০০৪ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত আছেন। পাশাপাশি ২০০৬ সাল থেকে তিনি কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বর্তমানে তিনি আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগের কাউন্সিলেও তিনি দলের এই পদে আসীন ছিলেন।

২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোস্তফা কামাল কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৯-১৩ এই সময়কালে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-১০ আসন থেকে তৃতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং পরিকল্পনামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে সাফল্যেই অর্থমন্ত্রলয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থানে গুরুদায়িত্ব বর্তে দিয়েছে তার ওপর।

বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে লোটাস কামালের রয়েছে বেশ পরিচিতি। ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। তার সময় বাংলাদেশে ২০১১ এ অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ক্রিকেট সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয় এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এই আসরটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১১) আন্তর্জাতিক র‌্যাকিংয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করার গৌরব লাভ করে।

২০১৪ সালের ১ জুলাই থেকে তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)’র নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এর আগে তিনি আইসিসির সহ-সভাপতি, অডিট কমিটির সভাপতি এবং এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। গত ৩০ বছরেরও অধিক সময় ক্রিকেটের সঙ্গে সম্পৃক্ত থেকে এর উন্নয়নে প্রশংসনীয় অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন কামাল। 

পারিবারিক জীবনে তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে কামাল দ্বিতীয়। তার স্ত্রী কাশমেরী কামাল একজন সফল ব্যবসায়ী। দুই কন্যা সন্তানের মধ্যে বড় মেয়ে কাশফী কামাল স্বপরিবারে প্রবাসী ও ছোট মেয়ে নাফিসা কামাল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের অন্যতম ফ্র্যাঞ্জাইজি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারপারসন।

ব্রেকিংনিউজ/এমআই/এমআর