যেভাবে তৃণমূল থেকে প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

এস এম আতিক হাসান
১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শনিবার
প্রকাশিত: ০৬:৩১ আপডেট: ১০:০০

যেভাবে তৃণমূল থেকে প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর মন্ত্রিসভা গঠনে চমক দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নতুন সরকারের মন্ত্রিসভায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী’র পিতা মরহুম আব্দুর রৌফ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, বিশিষ্ট রাজনীতিক এবং সমাজ সেবক হিসেবে খ্যাতিমান। তাঁর পিতা ১৯৩৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫২ সালে দশম শ্রেণির ছাত্র থাকা অবস্থায় ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে সিরাজগঞ্জে কারাবরণ করেন। পরবর্তীতে ঢাকা কলেজে ইন্টারমিডিয়েট পড়ার সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সান্নিধ্যে আসেন। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে বৃহত্তর দিনাজপুর (ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড়) ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৬২ সালে হামিদুর রহমান শিক্ষা আন্দোলন এবং ৬৬তে ৬ দফা আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। স্বাধীনতা সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে বাংলাদেশের সরকার প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহম্মেদ এর দূত হিসেবে কাজ করেন। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময় দেশ গঠনে তাঁর ভূমিকা প্রশংসনীয়।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আখচাষি ফেডারেশনের সভাপতি এবং কৃষক লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী’র পিতা মরহুম আব্দুর রৌফ চৌধুরী। ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর দীর্ঘদিন আত্মগোপনে থেকে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার চেষ্টা চালিয়ে যান, ১৯৮১ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করার পর দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত এ দায়িত্ব ছিলেন, এ সময়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) এর সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ১৯৯৯ সালে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ২০০২ সালে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি চলাকালে বি.এন.পি-জামাত সরকারের পুলিশ বাহিনী দ্বারা নির্মম নির্যাতনের শিকার হন এবং শারীরিকভাবে আর পুরোপুরি সুস্থ জীবনে ফিরতে পারেননি। ২০০৭ সালে ২১ অক্টোবর তিনি নিজ বাসভবনে মারা যান।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী’র মাতা রমিজা রৌফ চৌধুরী একজন গৃহিণী এবং সমাজসেবী। বর্তমানে আব্দুর রৌফ চৌধুরী ফাউন্ডেশন এবং আব্দুর রৌফ চৌধুরী প্রতিবন্ধী আশ্রয় কেন্দ্রের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও জাতীয় মহিলা সংস্থাসহ বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত আছেন। খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বাবা-মা’র একমাত্র পুত্র সন্তান। তার পাঁচ বোন রয়েছে।

তিনি ১৯৮৪ সালে সেতাবগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর হতে এস.এস.সি, ১৯৮৬ সালে দিনাজপুর সরকারি কলেজ হতে এইচ.এস.সি পাস করেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১৯৮৯ সালে বি.কম পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর অধীনে ১৯৯২ সালে মাস্টার্স ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (NDC) এর অধীনে ক্যাপস্টোন কোর্স সম্পন্ন করেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মাধ্যমে সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। প্রথমেই স্কুল ছাত্রলীগ এবং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা ছাত্রলীগ এবং পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন এবং সর্বশেষ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক হিসেবে ছাত্ররাজনীতি শেষ করেন। 

পরবর্তীতে আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুরু করার সঙ্গে সঙ্গেই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছাকাছি থাকার সুযোগ হয়, পাশাপাশি ২০০২ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন এবং ২০০৭ সালের ১২ জানুয়ারী আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর বিশেষ সহকারীর দায়িত্ব লাভ করেন। 

২০০৭ সালে ১১ জানুয়ারি (১/১১) সেনা সমর্থিত সরকারের সময় শেখ হাসিনার নির্দেশে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। বিশেষ করে শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করার পর তাঁর মুক্তি, দলকে সংগঠিত রাখার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

এর পর ২০০৮ সালে ২৯ ডিসেম্বর ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ উপজেলা) আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বিপুল ভোটের ব্যবধানে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং ২০১২ সালে জাতীয় কাউন্সিলে দ্বিতীয়বারের মত সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দ্বিতীয়বার একই আসন হতে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে ২২ অক্টোবর আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে তৃতীয়বার সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। 

সবশেষ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৃতীয়বার দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ উপজেলা) আসন হতে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি স্ট্রেট ডিপার্টমেন্টের আমন্ত্রণে লিডারশিপ প্রোগ্রামে ২০১০ সালে আমেরিকা ভ্রমণে যান। সেখানে অবস্থানকালে কেন্দ্রীয়, প্রাদেশিক এবং স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাসহ আমেরিকার জাতীয় নির্বাচন এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্মকাণ্ডের বিষয়ে অবহিত হন। চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে দু’বার চীন সফর করেন, কমিউনিস্ট পার্টির কার্যক্রম ও দেশ পরিচালনার বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে অবহিত হন। 

এছাড়াও চীনের গুয়াজিং প্রদেশের নেনিং শহরে ICAPP (আইক্যাপ) সম্মেলনে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি হিসেবে যোগদান করেন। উক্ত সম্মেলনে ২৫টি দেশের প্রায় ৫২টি রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়। এছাড়াও তিনি ভারত, যুক্তরাজ্য, জাপান, ফ্রান্স, হল্যান্ড, বেলজিয়াম ও কাতার সহ বিভিন্ন দেশে সরকার, দল এবং সংসদীয় প্রতিনিধি হিসেবে ভ্রমণ করেছেন।
 
নবম জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে সরকারি প্রতিশ্রুতি কমিটি, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটি এবং ১০ম জাতীয় সংসদে রেলপথ ও সংসদ কমিটিতে দায়িত্ব পালন করেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের পর তিনি নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এছাড়া খালিদ মাহমুদ চৌধুরী রাজনীতির পাশাপাশি শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, খেলাধুলা এবং সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত আছেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বিবাহিত এবং এক কন্যা সন্তানের জনক। একমাত্র মেয়ে তুষারাদ্রী মাহমুদ বর্তমানে যুক্তরাজ্যে অধ্যয়নরত। স্ত্রী মোসাম্মৎ রশীদুন আরা হাসনিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লেখাপড়া শেষ করে কর্মজীবনের প্রথমেই একটি বে-সরকারি সংস্থায় চাকরি জীবন শুরু করেন, পরবর্তীতে একটি কলেজে অধ্যাপনা করেন এবং যুক্তরাজ্যের এ্যঞ্জেলিনা রাসকিন বিশ্ববিদ্যালয় হতে এম.বি.এ ডিগ্রি লাভ করেন। বর্তমানে একটি বে-সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টী বোর্ড-এর সদস্যের দায়িত্বে আছেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী পেশাগত জীবনে কৃষি ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। খেলাধুলা ও বইপড়া তার প্রিয় সখ। মাঝে মাঝে সমাজ ও রাজনীতি নিয়ে লেখালেখিও করেন।

ব্রেকিংনিউজ/এএইচ/এমআর