bnbd-ads
bnbd-ads

সম্পত্তি নিয়ে দ্বন্দ্ব: মা-মেয়ে-ছেলেকে হত্যা নাকি আত্মহত্যা?

তৌহিদুজ্জামান তন্ময়
১৪ মে ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৮:৫০ আপডেট: ১১:০৭

সম্পত্তি নিয়ে দ্বন্দ্ব: মা-মেয়ে-ছেলেকে হত্যা নাকি আত্মহত্যা?

রাজধানীর উত্তরখান এলাকার একটি বাসা থেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা মা, মেয়ে ও ছেলের ৩/৪ দিন আগেই মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করছে পুলিশ। নিহতরা হত্যাকাণ্ডের শিকার, নাকি আত্মহত্যা সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারছে না পুলিশ। সোমবার (১৩ মে) ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে উদ্ধার হওয়া মা-মেয়ে ও ছেলের মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে দুপুরে ঢামেকের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক সোহেল মাহমুদ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘ওই তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে। অন্তত ৭২ ঘণ্টা আগে তাদের মৃত্যু হয়।’

ঢামেকের চিকিৎসকরা জানান, মা জাহানারা বেগমের গলায় ও পেটে ছুরিকাঘাতের হালকা দাগ রয়েছে। তবে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া মেয়ে তাসফিয়া সুলতানা মিমকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। জাহানারা বেগমের ছেলে মুহিম হাসান রশ্মিকে হত্যা করা হয়েছে গলা কেটে।

নিহতের স্বজনরা বলছেন, গত ৫ মে তারা ভৈরব থেকে ঢাকার উত্তরখানের এই বাসা ভাড়া নেন। নিহত জাহানারা বেগমের পৈত্রিক একটি জমি আছে এখানে। মূলত সেখানে ঘর তুলে বসবাসের জন্যই তারা এখানে এসেছিলেন।   

জাহানারা বেগমের স্বামীর নাম মৃত ইকবাল হোসেন। তাদের গ্রামের বাড়ি ভৈরবের জগন্নাথপুর এলাকায়। গ্রামের বাড়িতে সম্পত্তির ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছিল পরিবারটির মাঝে। বাড়িতে তাদের মাথা গোঁজার মতো ঠাঁই ছিল না। তবে ঠিক কী কারণে তারা নিহত বা আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন, এমন কোনও ধারণা দিতে পারেনি আত্মীয় বা প্রতিবেশীরা। সপ্তাহখানেক আগে ভৈরবের বাসা ছেড়ে তারা তিনজন ঢাকার উত্তরখানের ময়নারটেক এলাকার ৩৪/বি বাসার একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া উঠেছিলেন।

উত্তরখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খলিলুর রহমান ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘জাহানারার ছেলে মহিব হাসান রশ্মির গলার বাঁ থেকে ডান দিকে ধারালো অস্ত্রের পোচ ছিল। পাশেই পড়ে ছিল একটি রক্তমাখা বটি। দিন দশেক আগে রশ্মি ফেসবুকে হতাশা প্রকাশ করে একটি পোস্ট দেন। সেখানে লেখা ছিল, ‘জীবনের জন্য টাকা আর টাকাই সব’।’

মরদেহ উদ্ধারের সময় ওই বাসার দরোজা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল কিনা এ ব্যাপারে ওসি বলেন, ‘তিনজনকে হত্যা করে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করার মত কোনও আলামত আমরা পাইনি।’

ওসি আরও জানান, পরিবারটির আত্মীয়স্বজনকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা মামলা করতে না চাইলে পুলিশ মামলা করবে। এ ঘটনায় আপাতত অপমৃত্যুর মামলা করা হবে। আর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে মৃত্যুর অন্য কারণ জানা গেলে সেই অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঘরের দুই জায়গায় দুটো চিরকুট পাওয়ার কথা জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। দুই চিরকুটের বক্তব্য একই, তবে হাতের লেখা আলাদা। সেগুলোতে লেখা ছিল, ‘আমাদের মৃত্যুর জন্য আমাদের ভাগ্য এবং আমাদের আত্মীয়স্বজনের অবহেলা দায়ী। আমাদের মৃত্যুর পর আমাদের সম্পত্তি দান করা হোক’।

জাহানারার ভাই মনিরুল হক হাসপাতালের মর্গে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার বোনজামাই বিআরডিবিতে চাকরি করতেন। মূলত তার মৃত্যুতে পরিবারে হতাশা নেমে আসে। এ মাসের শুরুতে ৪০তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন রশ্মি। এমবিএ শেষ করার পরও সে চরম হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছিল।’

এদিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের দক্ষিণখান জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার হাফিজুর রহমান রিয়েল ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘পুলিশ সবদিক বিবেচনা করে বিভিন্ন মোটিভ নিয়ে তদন্ত কার্যক্রম চালাচ্ছে। তদন্ত শেষে ঘটনার মৃত্যুর মূল কারণ সম্পর্কে বলা যাবে।’

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/এমআর