বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল, ক্যাসিনোর টাকার ভাগ পেতেন নেতারাও

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ০৪:১১ আপডেট: ০৪:১৭

বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল, ক্যাসিনোর টাকার ভাগ পেতেন নেতারাও

রাজধানীর ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স ক্লাব ক্যাসিনোর মালিক ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার কোটি কোটি টাকার ক্যাসিনো সেট-আপ, বিদেশ থেকে নারী-পুরুষ এনে সেগুলো পরিচালনা করাসহ নানা অবৈধ কাজ চলতো তার ক্লাবে। এত বড় আয়োজনের বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ জানতো না? জানলেও তারা চুপ ছিল কেন?

আটকের পর র‍্যাব-৩ কার্যালয়ে নিয়ে খালেদ মাহমুদকে এসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে র‍্যাব। ক্যাসিনো থেকে উপার্জনের টাকা কার কার কাছে যেত, সে নিয়েও প্রশ্ন করা হয় তাকে। তবে তার দেওয়া তথ্য সঠিক কিনা যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধ অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে। নথিভুক্ত হওয়ার পর ওই দুই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে আজ বিকেলে আদালতে সোপর্দ করা হবে।

তবে সর্বশেষ দুপুর ২টা পর্যন্ত র‌্যাব-৩ হেফাজতে গ্রেফতার খালেদকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল বলে র‌্যাবের একাধিক কর্মকর্তা বিষয়টি ব্রেকিংনিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

র‌্যাব সদর দফতরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার-বিন-কাশেম ব্রেকিংনিউজকে বলেন, গ্রেফতার খালেদ র‌্যাব হেফাজতে রয়েছেন। তাকে গুলশান থানায় হস্তান্তরের প্রস্তুতি চলছে।

র‌্যাবের একটি সূত্র জানায়, ক্যাসিনো ও মাদক ব্যবসা নিয়ে আটক খালেদকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। অস্ত্র আইনে গুলশান থানায় ও মাদক আইনে মতিঝিল থানায় পৃথক দুটি মামলা প্রস্তুতি চলছে। র‌্যাব বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে এ দুটি মামলা করবে বলে জানা গেছে।

খালেদকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, স্থানীয় নেতা বা সংশ্লিষ্টদের ছত্রছায়ায় ক্যাসিনো পরিচালিত হতো। সেসব লিডারদের ম্যানেজ করার কথা বললেও কারা কারা জড়িত সে বিষয়ে এখনও স্পষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি। আরও বেশকিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তবে তদন্তের স্বার্থে নিশ্চিত না হয়ে এখনই সে বিষয়ে কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না বলেও মন্তব্য করেন র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা।

এর মধ্যে জানা গেছে, ক্যাসিনো বা জুয়ার আসর চালানো ইয়ংমেন্স ক্লাবের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান ঢাকা-৮ (মতিঝিল-রমনা-পল্টন) আসনের সংসদ সদস্য ও ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন। প্রথমে সাংবাদিকদের কাছে ক্লাবের চেয়ারম্যান থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন মেনন। তবে সেখানে তার ছবি থাকার কথা উল্লেখ করা হলে এ তথ্য স্বীকার করেন তিনি।

রাশেদ খান মেনন দাবি করেছেন, মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী সাব্বির এ ক্লাবটিরও সাধারণ সম্পাদক। হাজী সাব্বিরই তাকে ওই ক্লাবে নিয়ে গিয়ে চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য, বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাতে অবৈধ অস্ত্র, মাদক ও ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে খালেদ মাহমুদ ভূইয়াকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে র‍্যাব। গ্রেফতারের পর তাকে র‍্যাব-৩ এর কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

ব্রেকিংনিউজ/ টিটি/ এসএ