পাওনা‌ পরিশোধের দা‌বিতে গার্মেন্টস শ্র‌মিক‌দের বি‌ক্ষোভ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
৬ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০৩:৩০

পাওনা‌ পরিশোধের দা‌বিতে গার্মেন্টস শ্র‌মিক‌দের বি‌ক্ষোভ

সিনহা গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন গার্মেন্টসে বেআইনিভাবে শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন বন্ধ এবং শ্রমিকদের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে শ্রমিকদের আইনানুগ পাওনাদি পরিশোধ করার দা‌বি জা‌নি‌য়ে‌ছে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট।

র‌বিবার (৬ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লা‌বের সাম‌নে আয়োজিত বি‌ক্ষোভ সমা‌বে‌শে তারা এ দা‌বি জানায়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ২০১৩ সালে গার্মেন্টস খাত রপ্তানী করেছিল ১৯ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তা ৩১ বিলিয়ন ডলারে এসে দাঁড়িয়েছে। আজ জাতীয় রপ্তানীর ৮৩ ভাগ আসে গার্মেন্টস খাত থেকে। অথচ এই শিল্প বিকাশের প্রধান রুপকার সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকেরা। অথচ তারা পুরস্কৃত হওয়ার পরিবর্তে মালিকদের অমানবিক শোষন-নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। তাই উৎপাদন বা রপ্তানি বৃদ্ধি হলেও নতুন মজুরি কাঠামোয় ৫ বছরে অর্জিত বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট বাদ দিয়ে শ্রমিকদের প্রকৃত মজুরি কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর মালিকদের শোষণ বাধাহীন করার জন্য শ্রম আইনের  ২৩, ২৬, ২৭ নং ধারার মত অগণতান্ত্রিক শ্রমিক নির্যাতনের হাতিয়ার মালিকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। মালিকদের স্বার্থ নিশ্চিত করে প্রণিত এই শ্রম আইনে শ্রমিকের অধিকারের যেটুকু স্বীকৃতি রয়েছে আজ তাও চরমভাবে লঙ্ঘিত হচ্ছে।

বক্তারা আরও ব‌লেন, কোন শ্রমিকের চাকরির মেয়াদ পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বে সে নিজে চাকুরি থেকে অব্যহতি নিলে সে গ্রাচ্যুয়টি পাওয়ার অধিকারী হবে না। শ্রম আইনের এই বিধানের সুযোগ নিয়ে মালিকরা শ্রমিকের চাকুরির মেয়াদ ৫ বছর পূর্ণ হওয়ার কিছুদিন আগে শ্রমিককে চাকরি থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য করছে। আবার যেসব শ্রমিকের চাকুরির বয়স ৫ বছরের বেশী হয়ে গেছে তাদের বিরুদ্ধে ২৩ ধারায় শৃঙ্খলা ভঙ্গের মিথ্যা অভিযোগ তুলে আইনানুগ পাওনাদি অত্মসাৎ করে শ্রমিককে চাকুরিচ্যূত করা হচ্ছে। এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে প্রতিবাদী শ্রমিকদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করে তাদের ন্যায্য পাওনার দাবি ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য করছে। আবার আইনানুগভাবে অব্যহতি নেওয়া শ্রমিকের প্রাপ্য পাওনাও  মাসের পর মাস সময় নিয়ে শ্রমিককে ঘুরাতে থাকে কিন্তু অর্থ পরিশোধ করে না। 

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, মজুরি বৃদ্ধির নামে প্রতারণা করে প্রকৃত মজুরি কমিয়ে দেওয়া হলেও এখন মজুরি বৃদ্ধির অজুহাতে বিভিন্ন গার্মেন্টস কারখানায় অমানবিকভাবে দৈনিক কাজের টার্গেট বৃদ্ধি করে অতিরিক্ত কাজের বোঝা চাপিয়ে শ্রমিকদের অকালে কর্মক্ষমতা হারানোর ঝুঁকিতে ফেলা হচ্ছে।

এসময় নেতৃবৃন্দ শ্রমিক হয়রানিমূলক সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে শ্রমিকদের আইনানুগ প্রাপ্য পাওনা নিশ্চিত করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তদের প্রতি আহবান জানান।

সংগঠনের সভাপতি আহসান হাবিব বুলবুল এর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন, সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সৌমিত্র কুমার দাস, অর্থ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফ, সংগঠক রুহুল আমিন সোহাগ প্রমূখ। উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের অর্থ সম্পাদক জুলফিকার আলী এবং প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু নাঈম খান বিপ্লব প্রমুখ।

ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads