সড়কে একদিনেই ঝরলো ২১ প্রাণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০৬:৪৪ আপডেট: ১০:২৩

সড়কে একদিনেই ঝরলো ২১ প্রাণ

বেড়েই চলেছে সড়কে প্রাণহানির সংখ্যা। আজও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ১৭ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে হয়েছে। এসব ঘটনায় আরও অন্তত অর্ধশতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন।

রবিবার (১৮ আগস্ট) ভোর থেকে বিকেল (এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত) এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে- কুমিল্লায় ৮ জন, রাজধানীতে ২ জন, ময়মনসিংহে ২ জন, রংপুরে ২ জন, গোপালগঞ্জে ২ জন এবং লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম, টাঙ্গাইল, ঠাকুরগাঁও ও রাজবাড়ীতে ১ জন রয়েছেন।

কুমিল্লা
রবিবার (১৮ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে কুমিল্লার লালমাই উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার ৮ যাত্রী নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে ৬ জনই একই পরিবারের সদস্য।

নিহতরা হলেন—কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ঘোড়া ময়দান এলাকার মৃত আবদুর জব্বারের ছেলে জসিম উদ্দিন (৪৫), জসিম উদ্দিনের মা সকিনা বেগম (৭০), স্ত্রী সেলিনা বেগম (৪০), ছেলে সিপন (২৩), রিফাত (৮) ও মেয়ে নিপু আক্তার (১৩)। সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক একই উপজেলার করপতি গ্রামের মৃত জিতু মিয়ার ছেলে জামাল হোসেন (৩০) ও একই গ্রামের মা তুম্মির ছেলে হোটেল বয় শাইমুন হোসেন (১৫)। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ঢাকা থেকে লাকসামগামী তিশা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস একই দিকে যাওয়া একটি মাইক্রোবাসকে অতিক্রম করার সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ৫ যাত্রী নিহত হন। হাসপাতালে মারা যান আরও ৩ জন।

রাজধানী
রবিবার সকালে রাজধানীর সড়কে একতা বাসের ধাক্কায় অজ্ঞাত পরিচয় (৬০) এক বৃদ্ধা এবং তুরাগ বাসের চাপায় শহিরুল (৪৫) নামে এক কাঁচামাল ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

এক পথচারী জানান, রবিবার সকাল ৭টার দিকে উত্তর বাড্ডা ওভারব্রিজের নিচে একটি তুরাগ পরিবহনের একটি বাস শাহিরুলকে ধাক্কা দেয়। এতে গুরুতর আহত হন তিনি। তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শাহিরুল কাঁচামাল ব্যবসায়ী ছিলেন। বাবার নাম মৃত সাইদুল ইসলাম। থাকেন উত্তর বাড্ডায়। গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনা কলমাকান্দা চারিকুমারপাড়া গ্রামে।

অপরদিকে তুরাগ কামাড়পাড়া ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্বাবিদ্যালয়ের সামনে একতা পরিবহনের একটি বাস অজ্ঞাতপরিচয় ওই বৃদ্ধাকে ধাক্কা দেয়। এতে গুরুতর আহত হন তিনি। তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক ঘোষণা করেন।

ময়মনসিংহ
ময়মনসিংহের ফুলপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরও পাঁচজন। রবিবার সকালে ও বিকেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- রেজিয়া খাতুন (৫০) ও সায়েম (১৪)। নিহত রেজিয়া উপজেলার পাতিলগাঁও গ্রামের আব্দুর রশিদের স্ত্রী এবং সায়েম শেরপুরের নালিতাবাড়ি উপজেলার পলাশিয়া গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে। সায়েম নালিতাবাড়ির স্থানীয় একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

পুলিশ জানায়, রবিবার বিকেলে ময়মনসিংহ-শেরপুর সড়কের ফুলপুরের ভাইটকান্দি নামক স্থানে সিএনজি ও ভটভটির (টমটম) মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই সিএনজির যাত্রী সায়েমের মৃত্যু হয়। আহত হন সায়েমের মা-বাবাসহ চার যাত্রী। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

অপরদিকে সকালে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে ময়মনসিংহগামী একটি মাইক্রোবাসের চাকা ফেটে গেলে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে থাকা রেজিয়া খাতুন ও রিকসা চালক আনোয়ারকে চাপা দেয়। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে রেজিয়া খাতুনের অবস্থার অবনতি হলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

রংপুর
সকালে রংপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এতে হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জসহ আহত হয়েছেন আরও ৯ জন। দুমড়েমুচড়ে গেছে হাইওয়ে পুলিশের টহল গাড়ি। 

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ-আরপিএমপির কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদ জানান, সকাল ৭টার দিকে নগরীর টার্মিনাল মোড়ে একটি অটোরিকশাকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোচালকসহ ৬ জন গুরতর আহত হন। তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে মোকছেদুল ইসলাম (৩৬) নামের অটোচালক নিহত হয়। মোকছেদুল ইসলাম বদরগঞ্জের কুতুবপুরের শহিদুল ইসলামের পুত্র।

এছাড়া বড় দরগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, সকাল সাড়ে ৭টায় পীরগঞ্জের ফিডার রোড থেকে মহাসড়কে উঠার সময় একটি মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় ট্রাক। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল আরোহী আব্দুল হানিফ (২৮) নামের এক যুবক মারা যায়। তিনি শানেরহাটের আব্দুল কুদ্দুসের পুত্র। 

গোপালগঞ্জ
গোপালগঞ্জে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুই জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও একজন। রবিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের মুকসুদপুর উপজেলার রাগদি ইউনিয়নের ডোমরাকান্দি এলাকায় এবং সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের কাশিয়ানী উপজেলার রাতইল এলাকায় দুর্ঘটনা দুটি ঘটে।

নিহতরা হলেন—মুকসুদপুর উপজেলার রাগদি ইউনিয়নের ডোমরাকান্দি এলাকার নুরুল মোড়ল (৭০) ও কাশিয়ানী উপজেলার বরাশুর গ্রামের তাহের শরীফের ছেলে হাবিব শরীফ (৪০)।

পুলিশ জানায়, নুরুল মোড়ল বাড়ির সামনের রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় বরিশাল থেকে ঢাকাগামী সুগন্ধা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস তাকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। এতে তিনি ঘটনাস্থলে নিহত হন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরাদেহ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।

এদিকে, কাশিয়ানী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আজিজুর রহমান জানিয়েছেন, হাবিব শরীফ মোটরসাইকেলে কাশিয়ানীর ভাটিয়াপাড়া থেকে গোপালগঞ্জ আসছিলেন। মোটরসাইকেলটি রাতইল এলাকায় পৌঁছালে খুলনা থেকে ঢাকাগামী একটি বাসের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে ঘটনাস্থলে চালক হাবিব শরীফ মারা যান এবং অপর আরোহী এনায়েত হোসেন (৪৯) আহত হন।

চট্টগ্রাম 
রবিবার বেলা ১২টার দিকে লোহাগাড়া উপজেলার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চুনতি এলাকার মিডওয়ে ইন হোটেলের সামনে প্রাইভেট কার ও যাত্রীবাহী মাহেন্দ্র গাড়ির সংঘর্ষে আব্দুল মন্নান (৭০) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আরও ১৪ জন যাত্রী আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রবিবার বেলা ১২টার দিকে উপজেলার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চুনতি এলাকার মিডওয়ে ইন হোটেলের সামনে একটি প্রাইভেট কার ও যাত্রীবাহী মাহেন্দ্র গাড়ির সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই আব্দুল মন্নান নিহত হয়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করেন। 

ঠাকুরগাঁও
রবিবার দুপুরে পীরগঞ্জ উপজেলার নারায়নপুর ফুটানী টাউন নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছে। নিহত মমিনুর রহমান মমিন (২১) রাণীশংকৈল উপজেলার পকম্বা গ্রামের বাসিন্দা।

মমিনুর রহমান মমিন নিজ বাড়ি থেকে পীরগঞ্জ আসার পথে উক্ত স্থানে মোটরসাইকেল ব্রেক করার সময় পিছন থেকে এক মোটরসাইকেল আরোহী তাকে ধাক্কা দেয়। ফলে সে পাকা সড়কের উপর ছিটকে পড়ে গুরুত্বর আহত হয়। পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাজবাড়ী
ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার জমিদার ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় মাইক্রোবাসের ধাক্কায় বাস চালক মো. আলী হোসেন গাজী (৩৫) নিহত হয়েছে। রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। 

এ ঘটনায় আহলাদীপুর হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘাতক মাইক্রোবাস ও যাত্রীবাহী বাসটি আটক করেছে। নিহত আলী হোসেন খুলনা জেলার রুপসা থানাধীন তিলক গ্রামের মৃত আজিজ গাজীর ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, দৌলতদিয়া থেকে খুলনাগামী (ঢাকা মেট্টো-জ- ১১-১০৭১) গোয়ালন্দ উপজেলাধীন জমিদার ব্রিজ এলাকায় আসলে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। এসময় বাসের চালক আলী হোসেন বাসটি মেরামতের জন্য ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের একপাশে দাঁড় করিয়ে বাসের নিচে গিয়ে কাজ করতে থাকে। এসময় পেছন দিক থেকে আসা মাইক্রোবাসটি দ্রুত গতিতে এসে ধাক্কা দেয়। এতে করে বাসের নিচে থাকা বাস চালক চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। 

লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল ড্রেনে পড়ে ইব্রাহিম হোসেন নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। মোটরসাইকেল কিনে দেওয়ার একদিন পর রবিবার সকালে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের জেবি রোড এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ইব্রাহিম দালাল বাজার ডিগ্রি কলেজের একাদ্বশ শ্রেণির ছাত্র ও পৌরসভার বাঞ্চানগর এলাকার বাবুল মিয়ার ছেলে।

টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় আল-আমিন (২০) নামের এক ওয়ার্কশপ কর্মচারী নিহত হয়েছে। আজ রবিবার সকালে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইল সদর উপজেলার আশেরপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। নিহত আল-আমিন সদর উপজেলার দুরুন এলাকার আলম মিয়ার ছেলে। তিনি আশেকপুরে একটি দোকানে ওয়ার্কশপের কর্মচারী হিসেবে কাজ করতেন।

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ