bnbd-ads
bnbd-ads

সেই বর্ষার পরিবারের পাশে জেলা প্রশাসন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

২২ মে ২০১৯, বুধবার
প্রকাশিত: ১১:৫১

সেই বর্ষার পরিবারের পাশে জেলা প্রশাসন

অপহরণের পর আসামির স্বজনের হুমকি আর অপমানে সইতে না পেরে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আকতার বর্ষা আত্মহত্যার করে। গত ১৬ মে রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার বাকশিমইল গ্রামে বর্ষা আত্মহত্যা করে। সেই অসহায় পরিবারে পাশে বুধবার (২২ মে)  রাজশাহী জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের পরিবার সমবেদনা দেন। 

এ সময় নিহতের বর্ষার বড় বোন জান্নাতুন ফেরদৌস চাঁদনী, পিতা আ. মান্নান, মোহনপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাড. আব্দুস সালাম, সহকারী কমিশনার(ভূমি) রানুআরা খাতুন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহবুব হাসান রাসেল ও সানজীদা রহমান রিক্তা, বাকশিমইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আর মোমিন শাহ্ গাবরুসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। এইসময় তিনি পরিবারকে পুনর্বাসনসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার আশ্বাস দেন।

উল্লেখ্য, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজশাহী পুলিশ লাইনে ক্লোজ হওয়ার একদিন পর সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেন। স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আকতার বর্ষা আত্মহত্যার ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ইফতে খায়ের আলম।

তিনি বলেন, স্কুলছাত্রী বর্ষার ঘটনায় পুলিশের অবহেলা আছে কি না জনতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। মঙ্গলবার কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জেলা পুলিশ সুপার ওসি আবুল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। একই সঙ্গে তাকে বরিশাল রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়েছে।

গত ২৩ এপ্রিল প্রাইভেট পড়তে গিয়ে অপহরণের শিকার হন নবম শ্রেণীর ছাত্রী বর্ষা। ওই দিন বাড়ি থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দূরে খানপুর বাগবাজার এলাকায় অচেতন অবস্থায় বর্ষা পাওয়া যায়। এ ঘটনায় রাতেই প্রতিবেশী বখাটে মুকুলকে পুলিশ আটক করলেও সকালে ছেড়ে দেয়। এরপর টানা চার দিন মামলা করতে থানায় গেলেও পুলিশ মামলা নেয়নি। উল্টো বর্ষার বাবাকে আটকে রেখে হয়রানি এবং পিটিয়ে দাত ভেঙে দেয়ার হুমকি দেয় ওসি। এসব ক্ষোভে গত ১৬ মে নিজ ঘরে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে বর্ষা।

ব্রেকিংনিউজ/এমজি

bnbd-ads
MA-in-English
bnbd-ads