রংপুরে আ.লীগের প্রার্থিতা প্রত্যাহার, নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, রংপুর
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
প্রকাশিত: ০৮:২৮ আপডেট: ০৮:৪৬

রংপুরে আ.লীগের প্রার্থিতা প্রত্যাহার, নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ

রংপুর সদর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করা হয়েছে। সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয় আওয়ামী লীগ। এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে দলটির নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ করে। তারা রাস্তায় বসে পড়ে প্রার্থিতা বহাল রাখার দাবি করেন।

দিনভর নানা আন্দোলন শেষে বিকেলে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেয়। এখন এই আসনে ৬ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে থাকলেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকেলে নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে আসেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু। পরে তিনি নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে তার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেন।

প্রত্যাহার শেষে অ্যাডভোকেট রাজু সাংবাদিকদের বলেন, ‘রংপুরের লাখো নেতাকর্মীর হতাশার মধ্যেও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এবং দলীয় সিদ্ধান্তের আলোকে আমি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছি।’

এদিকে প্রত্যাহারের আগে আওয়ামী লীগসহ সকল সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা কাচারী বাজারে রাস্তায় শুয়ে ও বসে মনোনয়ন প্রত্যাহার না করার দাবিতে শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় পুরো রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। ভোগান্তিতে পড়েন নগরবাসী।

রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা  ও রংপুর-৩ আসনের উপ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা জিএম সাহাতাব উদ্দিন জানান, মোট ১২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন। এর মধ্যে ৯ জন জমা দিয়েছিলেন। বাছাইয়ে বাতিল হয়েছে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী কাওছার জামান বাবলা, বাংলাদেশ কংগ্রেসের একরামুল হক। শেষ দিনে প্রত্যাহার করলেন আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী। ফলে এখন মাঠে বৈধ প্রার্থী থাকলেন ৬ জন।

তারা হলেন- জাতীয় পার্টির রাহগীর আল মাহী সাদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাপার সাবেক চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের ভাতিজা সাবেক এমপি হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ, এনপিপির শফিউল আলম, খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মন্ডল রাজু, গণফ্রন্টের কাজী মো. শহীদুল্লাহ। 

প্রসঙ্গত: গত ১৪ জুলাই রংপুর সদর ৩ আসনের এমপি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক প্রেসিডেন্ট ও বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর ১৬ জুলাই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। গত ১ সেপ্টেম্বর আসনটিতে নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করা হয়।

তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৫ অক্টোবর এখানে ভোটগ্রহণ হবে ইভিএম পদ্ধতিতে। এজন্য মনোনয়ন পত্র জমা ও দেয়া হয় ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। বাছাই হয় ১১ সেপ্টেম্বর। প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল ১৬ সেপ্টেম্বর। রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটি করপোরেশনের ১-৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাড়া বাকি এলাকা নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন। এই আসনে ভোটকেন্দ্র ১৩০টি, ভোটকক্ষ ৯১০টি।  

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ 

bnbd-ads