কোথায় ওরা কেউ জানে না, দায় নেবে কে?

তৌহিদুজ্জামান তন্ময়
২৮ জুলাই ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ১০:৫১ আপডেট: ১১:১৮

কোথায় ওরা কেউ জানে না, দায় নেবে কে?

রাজধানীর অদূরে সাভারে বন্ধুর বাড়িতে বেড়াতে এসে ধলেশ্বরী নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হওয়া ধানমন্ডি আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের তিন ছাত্রের এখনও সন্ধান মেলেনি। নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন। সাভারে বেড়াতে যাওয়া শিক্ষার্থী ‍জানিয়েছে, তাদের ৫ মিনিট দেরি হয়ায় কলেজে প্রবেশ করতে দেয়নি নিরাপত্তাকর্মী। এরপরে তারা সাভারে বন্ধুর বাড়িতে বেড়াতে চলে যায় এবং নদীতে গোসল করতে নামে।

রবিবার (২৮ জুলাই) সকাল ৯টার দিকে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিখোঁজদের কোনও সন্ধান পাওয়া যায়নি। নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করতে বেগ পেতে হচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলকে। তবে উদ্ধারকাজ অব্যাহত আছে। 

নিখোঁজ শিক্ষার্থীরা হলেন, সাভারের ব্যাংক টাউন এলাকার বাবুল আহমেদের ছেলে তৌসিফ অহমেদ আকাশ (১৮), রাজধানীর তালবাগ এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে রাজন (১৭) ও রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার মেহেদি (১৭)।

এছাড়া জিহাদ ও নাহিদ নামে আরও দুই ছাত্রকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তারা সবাই রাজধানীর ধানমন্ডি আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা ব্রেকিংনিউজকে জানায়, গতকাল শনিবার সকালে ব্যাংক টাউন এলাকার ধলেশ্বরী নদীতে গোসল করতে নামেন ১০-১২ জন। পরে এদের মধ্যে পাঁচজন সাতঁরে নদীর মাঝে চলে যায়। এসময় তীব্র স্রোতের কারণে তারা তীরে উঠে আসতে পারছিলেন না। নদীর তীরে জমিতে কাজ করা ব্যক্তিরা বিষয়টি টের পেয়ে দুজনকে উদ্ধার করে পাশের হাসপাতালে পাঠায়। কিন্তু বাকি তিনজনের আর খোঁজ মেলেনি।

নিখোঁজ শিক্ষার্থী আকাশের বাবা বাবুল আহমেদ বলেন, ‘কলেজের ১২ জন বন্ধুর সঙ্গে নদীতে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়েছেন তার ছেলে আকাশ।’

ধানমন্ডি আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী মোকাদ্দিম ব্রেকিংনিউজকে জনিয়েছেন, সকালে কলেজে প্রবেশে মাত্র ৫ মিনিট দেরি হওয়ায় কলেজে ঢুকতে পারেনি। আজ রবিবার তাদের পরীক্ষা ছিল, তাই সহপাঠী আকাশের সাথে সাভারে ঘুরতে যায়। এক পর্যায়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ধলেশ্বরী নদীতে গোসল শেষ করে উপরে উঠার সময় আকাশ, রাজন ও মেহেদি স্রোতের কারণে দূরে চলে যেতে দেখা যায়। এসময় জিহাদ ও নাহিদ তাদেরকে টেনে তোলার চেষ্টা করেও না পারায় এক পর্যায়ে তারা তলিয়ে যায়।    

আরেক শিক্ষার্থী ইমন ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত আমাদের কলেজে ক্লাস চলে। গতকাল সকালে তারা ৫ মিনিট দেরিতে কলেজে পৌঁছালে নিরাপত্তাকর্মীরা আমাদেরকে ভেতরে ঢুকতে দেয়নি। পরে আকাশের সাথে রাজন, মেহেদি, মোকাদ্দিম, জিহাদ, নাহিদ, কিবরিয়া, হাসিব, রাউফুন, মানিক, জিসামসহ আমরা সাভারে চলে যাই। একপর্যায়ে গোসল করার জন্য নদীতে নামলে রাজন, মেহেদি ও আকাশ নদীর স্রোতে তলিয়ে যায়।’ 

এদিকে, তিন শিক্ষার্থী নিখোঁজের খবরে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন। এসময় সাভারের আমিনবাজার সার্কেলের সহকারী কমিশনার ভূমি মো. যুবায়ের হোসেনের নেতৃত্বে ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় উদ্ধার কর্মীরা নিখোঁজ ছাত্রদের সন্ধানে উদ্ধার তৎরতা চালায়।

অন্যদিকে, নিখোঁজ ছাত্রদের স্বজনেরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসলে তাদের কান্নায় নদীতীরের বাতাস ভারি উঠে। এছাড়া নারী-পুরুষসহ সব বয়সের উৎসুক জনতার ভিড় কমানোর জন্য আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীকেও বেগ পেতে হচ্ছে। 

সাভার ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার লিটন আহমেদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমাদের দুটি ইউনিটসহ ডুবুরি দলের সদস্যরা নিখোঁজ ছাত্রদের উদ্ধারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে তারা কোথায় ডুবে গেছে সেই জায়গাটি সুনির্দিষ্ট করে বলতে না পারায় এবং প্রচণ্ড স্রোতের কারণে উদ্ধারকাজে কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে। তবে নিখোঁজ ছাত্রদের খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত তাদের উদ্ধার অভিযান চলমান থাকবে।’

৫ মিনিট দেরি হওয়ায় কলেজে ঢুকতে না দেয়ার ব্যাপারে ধানমন্ডি আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘ক্লাস শুরু হয়ে গেলে যথাসময়ে আমাদের গেইট বন্ধ হয়ে যায়। তবে ৫ থেকে ১০ মিনিট দেরি হওয়ার কারণে ঢুকতে দেয়া হবে না এমন কথা সত্য নয়। শিক্ষার্থীরা সাভারে থাকা এক বন্ধুর বাড়িতে যাওয়ার জন্য তারা কলেজে আসেনি।’ 

নিখোঁজ ছাত্রদের উদ্ধারে সব সময় খোঁজখবর রাখা হচ্ছে বলেও জানান বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে ‘নেতিবাচক’ শিরোনামে উঠে আসা রাজধানীর স্বনামধন্য কলেজটির এই অধ্যক্ষ।

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/এমআর