সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের দাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ১১:৫৯

সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের দাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান

২০১৮ সালে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা জাতীয়করণ ও কোডবিহীন মাদরাসাগুলো মাদরাসা বোর্ডের কোড নাম্বার অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সরকার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো তা বাস্তবায়ন করার দাবি জানিয়েছে অবস্থান কর্মসুচি করছে শিক্ষকরা। 

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক সমিতি উদ্যোগে এ অবস্থান কর্মসূচি করছেন তারা।

অবস্থান কর্মসূচিতে সমিতির সভাপতি মাও. হাফেজ ফয়েজুর রহমান বলেন, ‘২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ১৬ দিন শিক্ষকরা অবস্থান কর্মসূচি থেকে অনশন পালন করে। শিক্ষা সচিব প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জাতীয় প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে শিক্ষকদের দাবি পূরণে আশ্বস্ত করেছিলেন কিন্তু এখন পর্যন্ত সেটি বাস্তবায়ন না হওয়ায় শিক্ষকরা হতাশ। তাই অনতিবিলম্বে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসাকে জাতীয়করণ করা হোক।’

লিখিত বক্তব্য বলা হয়, ১৯৯৪ সালে একই পরিপত্রে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে বিগত সরকারের সময়ে ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি করা হয়। তবে ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি বর্তমান মহাজোট সরকার ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাইমারি স্কুল জাতীয়করণ করে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতো সরকারের সকল কাজে অংশগ্রহণ করে ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা। অথচ মাস শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পায় কিন্তু ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা তেমন কোনো বেতন পায় না। তবুও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নেয় শিক্ষকতা চালিয়ে যাচ্ছেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষকরা। ১৫১৯টি মাদরাসা শিক্ষকরা সর্বসাকুল্যে প্রধান শিক্ষক ২৫০০ টাকা, সহকারী শিক্ষক ২৩০০ টাকা ভাতা পায়। আর বাকি প্রায় ৮ হাজার ৫০০ টি মাদরাসা শিক্ষকরা প্রায় ৩৪ বছর যাবত বেতন-ভাতা হতে বঞ্চিত।’

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের নাটশালা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘১৯৮২ সালে আমাদের প্রতিষ্ঠান চালু হয়। শুরু থেকে আমরা সব ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি। কিন্তু শিক্ষকরা বেতন-ভাতা না পাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতন জীবনযাপন করছি। তাই এসব মাদরাসাগুলো জাতীয়করণ করে শিক্ষক পরিবারের হাসি ফুটানোর অনুরোধ করছি সরকারের প্রতি।’

তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত এ অবস্থান কর্মসূচি চলবে বলে শিক্ষকরা জানান।

ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে কিছু দাবি উত্থাপন করেন। দাবিগুলো হচ্ছে-

প্রাথমিকরে ন্যায় মাদরাসা বোর্ড কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা জাতীয়করণ, কোড বিন মাদরাসাগুলো মাদরাসা বোর্ড কর্তৃক কোড নাম্বার এ অন্তর্ভুক্তকরণ, প্রাথমিকের নেয় প্রতিটি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার অফিস সহায়ক নিয়োগ প্রদান, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষকদের পিটিআই ট্রেনিং এর মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ, প্রাইমারি নেয় স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা সমূহে আসবাবপত্রসহ ভবন নির্মাণ, পূর্বের ন্যায় এইচএসসি মানবিক শিক্ষকদের নীতিমালা অন্তর্ভুক্তকরণ এবং প্রাইমারি নেয় স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা সমূহ স্থায়ী রেজিস্ট্রেশন ব্যবস্থা করণ।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মো. তৌহিদুল ইসলাম, শিক্ষক মিজানুর রহমান, আলাউদ্দিনসহ বিভিন্ন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষকরা।

ব্রেকিংনিউজ/ এএইচএস/ এসএ

bnbd-ads
bnbd-ads