কষ্ট, ক্লান্তি আর ভোগান্তির যাত্রা শেষে এবার খুশির বান ডেকেছে

নিউজ ডেস্ক
১২ আগস্ট ২০১৯, সোমবার
প্রকাশিত: ০৩:২৯ আপডেট: ০৮:১০

কষ্ট, ক্লান্তি আর ভোগান্তির যাত্রা শেষে এবার খুশির বান ডেকেছে
ছবি: সালেকুজ্জামান রাজীব

ত্যাগের মহিমা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারা দেশে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় উদযাপন হচ্ছে ঈদুল আজহা। খুশির এই ঈদকে সামনে রেখে স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে এরইমধ্যে রাজধানী ঢাকাকে ফাঁকা করে গ্রামে পৌঁছেছেন লাখ লাখ মানুষ। কিন্তু নাড়ির টানে এই বাড়ি ফেরা নিয়ে গেল কয়েকটা দিন ভোগান্তির অন্ত ছিল না ঈদযাত্রীদের। 

ট্রেন কিংবা বাস- আগাম টিকিট সংগ্রহ করতে গিয়ে যেমন ঘণ্টার পর ঘণ্টা দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষার প্রহর গুণতে হয়েছে, একইভাবে ‘সোনার হরিণ’ সেই টিকিট সেই টিকিট হাতে পাওয়ার পর যাত্রাপথের দুর্ভোগও পোহাতে হয়েছে দেশের সব অঞ্চলের ঈদযাত্রীদের। 

তারপরও যানজট, জনজট উপেক্ষা করে ৫ ঘণ্টার পথ ১০ ঘণ্টা পাড়ি দিয়ে হলেও শেষ পর্যন্ত ঘরে ফেরা মানুষ খুশির ঈদ উদযাপন করছে প্রিয়জনদের সঙ্গে। পবিত্র ঈদুল আজহার প্রথম দিনে সকালে ঈদের জামাত, তারপর কোরবানির ব্যস্ততা শেষে এখন প্রতিটি মুসলিম পরিবারেই রান্নাবান্নার ব্যস্ততা। বছর ঘুরে আসা এই খুশির উৎসবে সবাই সাধ্যমতো নানা খাবারদাবারের আয়োজন করেছেন। ঘরে ঘরে অতিথি আপ্যায়ন শুরু হবে বিকেল থেকেই। চলবে আগামী কয়েকদিন পর্যন্ত। 

এদিকে ঈদে ঘরে ফেরা মানুষদের যাত্রাপথে নানা অভিযোগ আপত্তি থাকলেও তাদের চোখের কোণে ছিল এক চিলতে চঞ্চলতা ও মনে ছিল আনন্দ। কারণ একটিই। অনেকদিন পর বাড়ি ফেরার সুযোগ হয়েছে। অনেকদিন পর আবারও পরিবার ও স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করা যাবে। তাই সব কষ্ট ও ক্লান্তিকেও যেন সবাই ঈদ আনন্দের অংশ করেই নিয়েছিল। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads