এখন কি হবে মিমি-নুসরতের!

বিনোদন ডেস্ক
২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ১১:৪১

এখন কি হবে মিমি-নুসরতের!

যেদিন ঘোষণা হয়েছিল মিমি চক্রবর্তী যাদবপুর কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হচ্ছেন, সেদিন টলিপাড়ার সকলের তাক লেগে গিয়েছিল। বাংলা বাণিজ্যিক ছবিতে সেই মুহূর্তে মিমি চক্রবর্তীই ছিলেন প্রায় এক নম্বর নায়িকা। কারণ এই ঘোষণার ঠিক কিছুটা আগেই টলিউডের নামী প্রযোজনা সংস্থার একটি ছবি ছাড়তে হয় নায়িকা নুসরত জাহানকে। সেখানে নুসরতের জায়গায় আসেন মিমি। 

এখন ভোটপর্ব মেটার মুখে একটি বিষয় স্পষ্ট। টলিউডের নামী প্রযোজনা সংস্থার ছবিতে এখনই নুসরত জাহানকে দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। বরং মিমির সামনে যে কোনও মুহূর্তে আসবে সুযোগ। মিমির থেকেই জানা গেল, প্রচার পর্ব শুরুর আগেই দু’-তিনটে প্রোজেক্ট এসেছিল তার কাছে, যেগুলো তিনি করতে চান। এবার দ্রুত শ্যুটিং ফ্লোরে ফিরতে বদ্ধপরিকর নায়িকা। 

তারই সঙ্গে আজ জিতলে নিজের কেন্দ্রের জন্য কী-কী কাজ করবেন, তার তালিকা তৈরি করে নিয়েছেন নায়িকা।

সাতদিনের মধ্যেই এলাকার উন্নয়নের কাজে হাত দেবেন, এমনটা ঠিক করেছেন। প্রচারপর্বে মানুষের স্পর্শে দুই হাতে আঁচড় ভর্তি নায়িকার। লাগাতার প্রচারে ডায়েট চার্ট মেনে খাবার খাওয়াও বিঘ্নিত। ত্বকে ট্যান পড়েছে অপরিসীম। 



সবকিছুর কবল থেকে বেরিয়ে তরতাজা হয়ে আবার ‘নায়িকা’ সত্তায় ফিরতে হবে মিমিকে। কিন্তু টলিউডের একাংশই মিমির বিরোধীকে ভোট দিয়েছেন (যাদের কেন্দ্র ছিল যাদবপুর এমন তারকাদের একাংশ)। অর্থাৎ রাজনীতিতে আসার কারণে টলিউডের মধ্যেই মিমির বিরোধী পক্ষ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে এবার। আজ জিতলে তাদের এক গোল দেবেন মিমি, সন্দেহ নেই। কিন্তু না জিতলে সমালোচনা সাংঘাতিক মাত্রা নেবে। 

পাশাপাশি গত দু’-তিন মাস অভিনয় থেকে যে বিরতি নিলেন, সে বিরতি ভেঙে যখন ফিরবেন, তখন কামব্যাক ছবি হিট হওয়া জরুরি। আজ জিতলে কেন্দ্রের জন্য কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ার পাশাপাশি সঠিক চিত্রনাট্য বেছে নিতেই হবে মিমিকে, টলিউডে পায়ের তলার শক্ত মাটি ফিরে পেতে। 

এদিকে, নুসরত জাহানের রাজনীতি-আগ্রহ রয়েছে এ কথা টলিউডে অনেকেই জানতেন বলে, তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে বসিরহাট থেকে নায়িকার নাম ঘোষণা হওয়ায় টলিপাড়ায় তেমন উত্তেজনা হয়নি। সে সময় নুসরত কোনও ছবির শ্যুটিংয়ে ব্যস্তও ছিলেন না। ২০১৮-য় নায়িকা অভিনীত ‘ক্রিসক্রস’ আর ‘নকাব’ মুক্তি পাওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত নুসরতের কোনও ছবিও মুক্তি পায়নি। 

অর্থাৎ বড়পর্দায় নুসরতের বিরতি চলছে মাস আটেক। নায়িকা মনস্থিরও করেছেন এরপর শুধুমাত্র সেই ছবিরই অংশ হবেন, যা দর্শকমনে পাকা জায়গা করতে পারবেন। 

কবে শ্যুটিং ফ্লোরে পাওয়া যাবে নুসরতকে, প্রশ্নের উত্তরে নায়িকা জানান, এই সপ্তাহেই চিত্রনাট্য পড়তে শুরু করে দিচ্ছি। ভালো চিত্রনাট্য পেলেই কাজ করব। তবে ভোটপর্বের বিরতির সঙ্গে আরও কিছুটা সময় বিরতি জুড়তে পারে বলে নায়িকার এক ঘনিষ্ঠ সূত্রে খবর। কারণ বর্তমানে নায়িকার বিশেষ বন্ধু নামী ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে তিনি নাকি আগামী মাসেই সাতপাকে বাঁধা পড়বেন বলে মনস্থির করেছিলেন। 

তবে মিমির মতোই একটি রাজনৈতিক রং গায়ে মেখেছেন বলে টলিউডে নুসরতেরও কিছু বিরোধী এই মুহূর্তে সরব। তাদের টেক্কা দিতে ব্যক্তিগত জীবনে নতুন পদক্ষেপের পাশাপাশি হিট ছবির অংশ হওয়ার দরকার নায়িকার।

ব্রেকিংনিউজ/অমৃ