যেভাবে ছয় মাস বছরের জন্য সংরক্ষণে রাখবেন কোরবানির মাংস

লাইফস্টাইল ডেস্ক
১৬ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার
প্রকাশিত: ০৪:২৩ আপডেট: ০৪:৩০

যেভাবে ছয় মাস বছরের জন্য সংরক্ষণে রাখবেন কোরবানির মাংস

পরম করুণাময় আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা ঈদুল আজহায় পশু কোরবানি করে থাকেন। গরিব-মিসকিনদের মধ্যে মাংস বিলিয়ে দেয়ার পরও প্রচুর পরিমাণ মাংস ঘরে থেকে যায়। যেগুলো যথাযথ পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করে চার-ছয় মাস এমনকি এক বছরও খাওয়া যায়। এ প্রতিবেদনে কোরবানির মাংস সংরক্ষণের কিছু উপায় তুলে ধরা হলো:

মাংস সংরক্ষণের সময় প্রথমেই মাথায় রাখতে হবে মাংসের স্বাদ ও পুষ্টিগুণ যেন ঠিক থাকে। চিন্তার কোনও কারণ নেই। 

প্রথমেই বাসার ডিপ ফ্রিজের পুরানো খাবার সরিয়ে ফেলতে হবে। ফ্রিজ পুরো খালি করে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে ফেলা ভালো। কারণ আগে থেকে জমে থাকা রক্ত ও ময়লা নতুন মাংসের স্বাদ-গুণ নষ্ট করে দিতে পারে। 

কোরবানির মাংস সংরক্ষণের জন্য বড় বড় আকৃতির অনেক পলিথিন ব্যাগ জমিয়ে রাখতে হবে। আজকাল বাজারে জিপব্যাগ কিনতে পাওয়া যায়। কারণ ঈদের দিন আপনাকে পলিব্যাগে করেই মাংসগুলো ফ্রিজে রাখতে হবে। একইসঙ্গে কোরবানির পর কসাই যে স্থানে বসে মাংস কাটেন সেই স্থানটি আগে থেকে পরিষ্কার করে রাখতে হবে। কারণ, ধূলাবালিযুক্ত স্থানে মাংস কাটলে রান্নার সময়ে খাবার বালি বালি লাগতে পারে।

সাধারণত ফ্রিজে রেখেই মাংস সংরক্ষণ করা হয়। তবে এক্ষেত্রেও কিছু নিয়ম অনুসরণ করতে হবে। 

পশু জবাইয়ের প্রথম ৩-৪ ঘণ্টার মধ্যে মাংস ফ্রিজে রাখা যাবে না। কারণ তখনও মাংসে রক্ত থাকে। ফ্রিজে রাখার আগে মাংস ভালো করে ধুয়ে রক্ত পরিষ্কার করে নিন। এবার বড় চালনিতে করে মাংসের পানি ঝরিয়ে ফ্যানের নিচে রেখে শুকাতে দিন। সব পানি ঝরে গেলে পলিথিনের প্যাকেটে ভরে মাংস ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন।

পানি দিয়ে ধুতে না চাইলে পরিষ্কার শুকনা কাপড় দিয়েও মাংসের গায়ে লেগে থাকা রক্ত মুছে নিতে পারেন। অনেক দিনের জন্য ফ্রিজে মাংস রাখলে মাঝে মাঝে ফ্রিজ খুলে সেগুলো নাড়াচাড়া করতে হবে। তা না হলে প্যাকেট একটার সঙ্গে অন্যটা লেগে যাবে। ফ্রিজে মাংস রাখার পর তাপমাত্রা কমিয়ে দিন। তাহলে মাংস দ্রুত জমে শক্ত হবে।

শহরে অধিকাংশ বাসাবাড়িতে ফ্রিজ থাকলেও গ্রামাঞ্চলের বিষয়টি আলাদা। এখানে সামর্থ্যের বিষয় থাকে। গ্রামে ইলেক্ট্রিসিটি থাকলেও শহরের মতো ঘরে ঘরে ফ্রিজ থাকে না। 
 
এক্ষেত্রে প্রথমত জ্বাল দিয়ে মাংস সংরক্ষণ করা যেতে পারে। যদি জ্বাল দিয়ে মাংস সংরক্ষণ করতে হয় তবে মাংসে চর্বির পরিমাণ একটু বেশি থাকাই ভালো। কারণ এতে মাংস দীর্ঘদিন ভালো থাকে। 

প্রথমে মাংস ভালোভাবে ধুয়ে বড় একটা হাড়িতে নিন। এবার হলুদ ও লবণ মিশিয়ে পরিমাণমতো পানি দিয়ে মাংস জ্বাল দিন। এ পদ্ধতিতে দিনে কমপক্ষে ২ বার নিয়ম করে মাংস জ্বাল দিতে হবে।

আবার রোদে শুকিয়েও মাংস দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করা যায়। রোদে শুকিয়ে মাংস সংরক্ষণ করতে হলে চর্বি ছাড়া মাংস নিতে হবে। এক্ষেত্রে একটি লম্বা তারে একটার পর একটা মাংস গেঁথে নিয়ে কাপড় শুকানোর মতো করে রোদে টানিয়ে দিতে হবে। চুলার উপরে তার বেঁধেও আগুনের তাপে মাংস শুকানো যায়। 

এই উপায়ে মাংস সংরক্ষণ করলে মাংসের সমস্ত পানি টেনে মাংস একদম শুকিয়ে যায়, ফলে দীর্ঘদিন তা ভালো থাকে। 

তবে মাংস যেন কাঁচা না থাকে সেজন্য অন্তত ৫-৬ দিন রোদে ভালো করে শুকাতে হবে। মাংস শুকিয়ে যখন শক্ত হয়ে যাবে তখন মুখ বন্ধ করা পাত্রে বা টিনের কৌটায় ভর্তি করে মুখটা শক্ত করে আটকে দিন। মাংসটা ভালো রাখার জন্য মাঝেমধ্যে পুরো কৌটা রোদে দিতে পারেন। তাহলে পোকার আক্রমণ হবে না। 

যেদিন রান্না করবেন সেদিন রান্নার কমপক্ষে ঘণ্টাখানেক আগে কৌটা থেকে পরিমাণ মতো মাংস বের করে হালকা গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তাতে মাংসটা নরম হবে। রান্নার পর খেতেও সুস্বাদু লাগবে। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর