শতকরা ২০ ভাগ মানুষের মৃত্যু খাবার আর ডায়েটের অনিয়মে

স্বাস্থ্য ডেস্ক
৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ১২:৫০ আপডেট: ০১:৫০

শতকরা ২০ ভাগ মানুষের মৃত্যু খাবার আর ডায়েটের অনিয়মে

মানুষ কি সঠিক খাবার সঠিক পরিমাণে সঠিক সময়ে খাচ্ছে? মানুষ কি ভেজালমুক্ত খাবার খেতে পারছে? খাবারে সমস্যার কারণেই কি বিশ্বজুড়ে অসংখ্য মানুষের অকাল মৃত্যু হচ্ছে না? আসলে খাবার নিয়ে এরকম নানা প্রশ্ন খাদ্য ও স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের মনে উঁকি দিতে পারে। 
কারণ, সঠিক খাবার গ্রহণ করতে না পারা ও ডায়েটের কারণে শতকরা ২০ ভাগ মানুষের অকাল মৃত্যু হচ্ছে। এক সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, গোটা বিশ্বে প্রতি বছর শুধুমাত্র খাবার আর ডায়েটের কারণেই এক কোটিরও বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। 

এই প্রতিবেদনে তেমনই কিছু খাবারের নাম উল্লেখ করা হলো যেগুলো মানুষের আয়ু কমিয়ে দেয়। মানুষের অকাল মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়। 

মাছ, মাংস কিংবা অন্য যে তরকারির সঙ্গেই আপনি লবণ ব্যবহার করেন না কেন- মনে রাখতে হবে এই লবণ আপনাকে প্রতিদিন মৃত্যুর দিকে নিয়ে যাচ্ছে। যেটি জীবনের আয়ু কমিয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখে। একইসঙ্গে কোনও কোনও ক্ষেত্রে লবণ হৃদযন্ত্রের ক্ষতি করছে বা ক্যান্সারের কারণ হচ্ছে। প্রতিবছর গোটা বিশ্বে অতিরিক্ত লবণ খাওয়ার কারণে কমপক্ষে ৩০ লাখ মানুষের অকাল মৃত্যু হয়। 

বিপজ্জনক খাদ্য হিসেবে যেসব উপাদানের কথা বলা হচ্ছে মধ্যে উল্লেখ্য অতিরিক্ত লবণ খাওয়া। এক কোটি দশ লাখ ডায়েট সম্পর্কিত মৃত্যুর মধ্যে এক কোটির মৃত্যু হচ্ছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে। অতিরিক্ত লবণ উচ্চ রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয় যা স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। হার্টে ও রক্ত বহনকারী ধমনীর ওপর লবণের প্রভাব পড়ে সরাসরি যা হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধের ঝুঁকি তৈরি করে।

এছাড়া কম দানাদার শস্য খাওয়া বিশ্বে প্রতিবছর ৩০ লাখ মানুষের মৃত্যুর কারণ আর ফলমূল কম খাওয়ার কারণে প্রতিবছর অকাল মৃত্যু হয় অন্তত ২০ লাখ মানুষের।

পাশাপাশি বাদাম, বীজ, শাক-সবজি, সামুদ্রিক থেকে পাওয়া ওমেগা-৩ এবং আঁশ জাতীয় খাবারের পরিমাণ কম খেতে পারায় সময়ের আগেই পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে মানুষকে। এছাড়া লাল মাংস কিংবা প্রক্রিয়াজাত মাংস মানুষের আয়ু কমিয়ে দিচ্ছে। গোটা শস্য দানা কিংবা বাদাম ও বীজের দানা পর্যাপ্ত পরিমাণ খেতে পারছে না মানুষ। যার কারণে মৃত্যু হচ্ছে অকালে।

যদি শেষ পর্যন্ত ডায়েটকেই সুস্বাস্থ্যের অন্যতম প্রধান পরিচালক হিসেবে মত দিয়েছেন ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস্টোফার মুরে। তবে সেই ডায়েট হতে হবে সঠিক সময়ে সঠিক উপায়ে।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর