কাশ্মীরে ১৪৪ ধারায় অবরুদ্ধ ঈদ, ঈদের জামাতে বাধা

ভারত-পাকিস্তান ডেস্ক
১২ আগস্ট ২০১৯, সোমবার
প্রকাশিত: ১২:১১ আপডেট: ০২:৪০

কাশ্মীরে ১৪৪ ধারায় অবরুদ্ধ ঈদ, ঈদের জামাতে বাধা

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে মুসলমানদের দ্বিতীয় প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদ উল আযহার দিনও চলছে ১৪৪ ধারা। স্থানীয় জনগণকে ঘরে থাকতে নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ। পথে পথে টহল দিচ্ছে পুলিশ, সেনাবাহিনী ও প্যারামিলিটারির গাড়ি।

সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় শ্রীনগরের বেশিরভাগ মসজিদেই ঈদের নামাজ পড়ার অনুমতি দেয়া হয়নি। জম্মু ও কাশ্মীরে স্থানীয় ছোট ছোট মসজিদে ঈদের নামাজ পড়া হয়েছে, সরকারের পক্ষ থেকে সেসব ঈদের জামাতের ছবিও প্রকাশ করা হয়েছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্রে জানিয়েছে, ঈদের বিশেষ নামাজের পর কোথাও কোথাও অস্থিতিশীলতা দেখা দিতে পারে বলে খবর রয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে। তাই একদিকে মানুষকে ঈদের নামাজ পড়তে দেয়ার ব্যবস্থা করে দেয়া, অন্যদিকে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখাই এখন চ্যালেঞ্জ প্রশাসনের সামনে।

আর এ কারণেই কারফিউ তুলে নেয়ার একদিন না পেরোতেই আবারও ১৪৪ ধারা জারি করা হয় জম্মু কাশ্মীরের বেশিরভাগ এলাকায়। ঈদ উল আযহা উপলক্ষে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলে হয়েছে পুরো কাশ্মীর উপত্যকাকে।

এ সময় এবং এনডিটিভি জানিয়েছে, বড় মসজিদগুলোতে ঈদ উপলক্ষে বহু মানুষের জমায়েত করতে দিচ্ছে না প্রশাসন। স্থানীয় মসজিদেই সবাইকে ঈদের নামাজ পড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে যে কোনো বড় জমায়েত হামলার লক্ষ্যবস্তু হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।কাশ্মীরে ঈদ-১৪৪ ধারা

সংবিধানের ২৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের ফলে কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনসহ বিশেষ সাংবিধানিক মর্যাদা তুলে নেয়ার ঘোষণার পর থেকেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলমান ১৪৪ ধারার কারফিউ শনিবার তুলে নেয়া হয়েছিল, যেন জনগণ ঈদ উপলক্ষে প্রয়োজনীয় কেনাকাটা ও কাজকর্ম করতে পারে।

এ উপলক্ষে কারফিউ তুলে নেয়ার পর শনিবারই শ্রীনগর ও আশপাশের এলাকার কিছু কিছু করে দোকানপাট খুলতে শুরু করে। ঈদের টুকিটাকি কেনাকাটা থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কিনতে পথে বেরিয়ে আসে সাধারণ মানুষ।

কিন্তু রোববার সকাল ১০টা বাজতেই হঠাৎ আগের মতোই ঘোরাঘুরি শুরু হয় পুলিশ ভ্যানের। সেখান থেকে হ্যান্ডমাইকে ঘোষণা আসে: ‘এখনই সবাই বাড়ি ফিরে যান। আবারও কারফিউ শুরু হচ্ছে।’

কারফিউয়ের ঘোষণা হতেই মুহূর্তে উধাও হয়ে যায় ভিড়। সশব্দে দোকানপাটের শাটার বন্ধ হতে শোনা যায়।

ব্রেকিংনিউজ/অমৃ