কাশ্মিরে শান্তি ফেরান, শিশুদের স্কুলে যেতে সহায়তা করুন: বিশ্বনেতাদের মালালা

ভারত-পাকিস্তান ডেস্ক
১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ১২:১১ আপডেট: ০১:৩৭

কাশ্মিরে শান্তি ফেরান, শিশুদের স্কুলে যেতে সহায়তা করুন: বিশ্বনেতাদের মালালা

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরের স্বায়ত্বশাসন বাতিল হওয়ার পর সেখানকার মুসিলমদের ওপর ভারতীয় সেনাদের নিপীড়ন চরমে পৌঁছেছে। স্কুল-কলেজ, হাটবাজার সব অচল হয়ে আছে। সেখানকার নাগরিকরা প্রতি মুহূর্তে অনিরাপত্তা আর অনিশ্চয়তায় দিন কাটাচ্ছে। পাকিস্তান সরকারের দাবি, মুসলিমদের জাতিগতভাবে নিধন করতেই কাশ্মিরের স্বায়ত্বশাসন তুলে নিয়েছে দিল্লি। 

এই যখন পরিস্থিতি তখন জম্মু-কাশ্মিরে শান্তি ফেরাতে ও সেখানকার শিশুদের স্কুলে যাওয়ার নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টিতে পদেক্ষেপ নিতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শান্তিতে নোবেল বিজয়ী পাকিস্তানের নারী অধিকারকর্মী মালালা ইউসুফজাই।

গতকাল শনিবার এক টুইট বার্তায় জাতিসংঘের উদ্দেশ্যে মালালা বলেন, ‘কাশ্মিরের শিশুদের জীবনের নিরাপত্তা দিন। ওদেরকে নিরাপদে স্কুলে ফিরে যেতে পদক্ষেপ নিন। ওদের পাশে দাঁড়ান।’ 

কাশ্মিরে শান্তি ফেরাতে বিশ্বনেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে মামলা বলেন, ‘কাশ্মিরের জনগণ চরম অনিরাপত্তায় আছে। নির্যাতন, নিপীড়ন, ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। আমি জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যোগদানকারী বিশ্বনেতাদের আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা কাশ্মিরিদের কথা শুনুন। কাশ্মিরে শান্তি ফেরাতে এগিয়ে আসুন।’

দেশটির এই নারী অধিকারকর্মী টুইট বার্তায় আরও বলেন, ‘জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে কাশ্মিরের শিক্ষার্থীরা নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হওয়া দরকার। যেন ওরা আবারও নিরাপদে স্কুলে যেতে পারে।’

মালালা অভিযোগ করে বলেন, ‘কাশ্মিরে শিশুসহ প্রায় ৪ হাজার মানুষকে বলপ্রয়োগ করে আটকে রাখা হয়েছে। তাদের ওপর নিপীড়ন চালানো হচ্ছে। তাদের বিনা কারণে দণ্ড দেয়া হচ্ছে। সেখানকার শিক্ষার্থীরা গত প্রায় ৪০ দিন ধরে স্কুলে যেতে পারছে না। এই পরিস্থিতিতে কাশ্মিরের ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা তুলে নিয়ে কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ঘোষণা করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিজেপি শাসিত ভারত সরকারের এ সিদ্ধান্তে ক্ষোভে ফেটে পড়ে কাশ্মিরিরা। সমালোচনার ঝড় উঠে পাকিস্তানে। এ নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাল্টা হুঁশিয়ারি চলছে। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads