‘মমতা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হলেই ভালো হবে’

ভারত-পাকিস্তান ডেস্ক
১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০১:০৫ আপডেট: ০২:১৫

‘মমতা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হলেই ভালো হবে’

আসামে শেষ হওয়া জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনের (এনআরসি) বিরোধিতা করে টানা বিক্ষোভ করছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস। মমতার এই এনআরসি বিরোধিতাকে ‘বাংলাদেশের পক্ষপাতিত্বের সামিল’ বলে অভিযোগ তুলছেন ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতারা। তবে নিজের অবস্থানে অটল মমতা দিল্লির প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চরণ করে জানিয়েছেন, আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গে কিছুতেই এনআরসি করার অনুমতি দেয়া হবে না।   

তার এই হুঁশিয়ারির পাল্টা জবাব দিতেও বিলম্ব করেনি বিজেপি নেতারা। ক্ষমতাসীনদেরও এক কথা- যে করেই হোক, পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি হবে। 

গেল বৃহস্পতিবার দুপুরে কলকাতার সিঁথি থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত মমতার নেতৃত্বে এনআরসি বিরোধী বিক্ষোভে তৃণমূল কংগ্রেসের হাজার হাজার নেতাকর্মীরা অংশ নেয়।

তবে মমতার এই বিরোধী পদক্ষেপকে কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিং। তার অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশিদের স্থান করে দিতেই মমতা এনআরসির বিরোধিতা করছেন। 

মুখ্যমন্ত্রীর কড়া সমালোচনা করে সুরেন্দ্র সিং সাংবাদিকদের বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি প্রয়োগ করা হবে। তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি বাংলাদেশিদের পশ্চিমবঙ্গে জায়গা করে দিতে চান, তবে তার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার চেষ্টা করা উচিত।’

এসময় মমতার প্রতি কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘মমতার খারাপ দিন ঘনিয়ে আসছে। তিনি যদি বাংলাদেশের জনগণের সমর্থন নিয়ে রাজনীতি করতে চান, তবে পশ্চিমবঙ্গ ছেড়ে তার বাংলাদেশেই চলে যাওয়া উচিত। মমতার কার্যকলাপে মনে হচ্ছে, তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেলেই ভালো হবে।’

মমতার প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে সুরেন্দ্র সিং বলেন, ‘এটা নিশ্চিত যে, পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি প্রয়োগ করা হবেই। চূড়ান্ত তালিকার পর যারা ভারতের নাগরিক হিসেবে অযোগ্য হবেন তাদেরকে সম্মানজনকভাবে ভারত ছাড়তে হবে।’

সুরেন্দ্র আরও বলেন, ‘শত বাধা দিলেও পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি কার্যকর করা হবে। আমরা সব বাংলাদেশির হাতে দুটি খাবাবের প্যাকেট ধরিয়ে তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেবো।’

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads