রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের ওপর চাপ ‘সহ্য করবে না’ চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০৩:৪৮ আপডেট: ০৫:৩০

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের ওপর চাপ ‘সহ্য করবে না’ চীন

দশকের পর দশক ধরে রাখাইনের মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা, ধর্ষণসহ অমানবিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। গণহত্যা ও ধর্ষণের হাত থেকে বাঁচতে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ রোহিঙ্গা। তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবার্সন নিয়ে আন্তর্জাতিক চাপে রয়েছে দেশটি। 

ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ন ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশে ও প্রতিষ্ঠানের নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েছে দেশটির সরকার ও সেনাবাহিনী। তবে অত্যাচারী এই দেশটির পক্ষেই থেকেছে সামরিক শক্তিধর চীন।

সর্বশেষ সেনাপ্রধান মিং অং হ্লেইংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন দেশটিতে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত চেন হাই। বৈঠকে মিয়ানমারের পক্ষে জোরালো ভাবে অব্স্থানের কথা জানিয়েছে দেশটি। 

চীনা রাষ্ট্রদূত বার্মা সেনপ্রধানকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের পাশে থাকবে বেইজিং। রোহিঙ্গা এবং মানবাধিকার ইস্যুতে মিয়ানমারের ওপর ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক চাপ সহ্য করবে না বেইজিং।’

দুই দেশের এই বৈঠকের খবর দিয়েছে  স্থানীয় দৈনিক ইরাবতী। সেনাবাহিনীর সংক্ষিপ্ত বিবৃতির বরাত দিয়ে পত্রিকাটির অনলাইন প্রতিবেদনে বৈঠকের আলোচনা বিষয় তুলে ধরেছেন।


বৈঠকে আলোচিত বিষয় নিয়ে বলা হচ্ছে, চীনা প্রতিনিধি তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। বিষয় তিনটি হলো- প্রথমত, রোহিঙ্গা এবং মানবাধিকার ইস্যুতে মিয়ানমারের ওপর ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক চাপ সহ্য করবে না বেইজিং। দ্বিতীয়ত, সম্প্রতি দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ সান এবং মানডালায় অঞ্চলের শহর পিও ও লুইনে যে সহিংস হামলা হয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তারা। তৃতীয়ত, মিয়ানমারে শান্তি প্রক্রিয়া এবং শান্তি আলোচনা অব্যাহত রাখতে সম্ভাব্য পথ খুঁজতে সহায়তা করবে চীন।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু কথা ছিল। কিন্তু ব্যাপক প্রস্তুতি ও উদ্যোগ থাকার পরও রোহিঙ্গাদের অনিচ্ছা-অনাগ্রহের কারণে এবারও বাধার মুখে পড়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কর্মসূচি। ৫ শর্ত দিয়ে একজন রোহিঙ্গাও স্বদেশে ফিরতে রাজি হননি।

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ