টেন্ডারের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই: দাবি ইবি ছাত্রলীগের

ইবি করেসপন্ডেন্ট
১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার
প্রকাশিত: ০৭:০০ আপডেট: ০৭:০০

টেন্ডারের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই: দাবি ইবি ছাত্রলীগের

টেন্ডারের সঙ্গে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের কোনও সম্পর্ক নেই বলে দাবি করছে সংগঠনটির সভাপতি এসএম রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। 

সোমবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে উপাচার্য অফিসে বহিরাগতদের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো থেকে অবৈধ ও অছাত্রদের বিতাড়িত করে বৈধ শিক্ষার্থীদের থাকার সুযোগ করে দেয়া এবং শিক্ষার্থীদের আবাসন সমস্যা নিরসনসহ টেন্ডারবাজিতে ছাত্রলীগের নামে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানায় ইবি ছাত্রলীগ। এসময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বরাবর টেন্ডারের সঙ্গে ইবি ছাত্রলীগ জড়িত নয় বলে দাবি করে তারা। ছাত্রলীগের নাম ভাঙিয়ে এমন কর্মকাণ্ড যে করবে তাদের শাস্তির দাবিও জানায় তারা।        

জানা যায়, গত ৫ আগস্ট বহিরাগত ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আলমগীর হোসেন আলো ও যুবায়ের হোসেনের নেতৃত্বে টেন্ডারকে কেন্দ্র করে শোডাউন দেয়া হয়। এসময় ছাত্রলীগের শীর্ষপদ বঞ্চিত ইংরেজি বিভাগের তন্ময় সাহা টনি দাবি করেন, ‘বর্তমান ছাত্রলীগের কিছু কার্যক্রমে আমরা সন্তুষ্ট না, তারা মিউচুয়ালভাবে কার্যক্রম চালাচ্ছেনা। টেন্ডার থেকে শুরু করে যেকোনো কাজে যদি অসঙ্গতিপূর্ণ কাজ করে তাহলে সেটা আমারা মেনে নেবোনা।’

শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, ‘ছাত্রলীগ কখনো টেন্ডার বা কোনো অনৈতিক কাজ করেনা বা করবেনা। বহিরাগত একটা মহল আমাদের বিতর্কিত করতে চাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩৭ কোটি টাকার উন্নয়নে যদি কোনো বহিরাগত বা অপশক্তি বাধাগ্রস্ত করে তবে ইবি ছাত্রলীগ তা শক্ত হাতে প্রতিহত করবে।’               

উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বলেন, ‘আমাদের সততা, স্বচ্ছতা, আন্তরিকতা ও ভাল টিমওয়ার্ক আছে। আমরা যদি এই মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারি তবে এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য সর্বোচ্চ সুবিচার হবে ও ইবি দেশের দৃষ্টিনন্দন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হবে।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের এই সোনার কর্মীরা যদি থাকে তাহলে এখানে শুধু এই প্রকল্পের কাজ নয় যে কাজ জননেত্রী শেখ হাসিনার মুখ উজ্জ্বল করবে তা ম্লান করার সাহস কোনো অপশক্তির হয়নি।’
          
তিনি আরও বলেন, ‘ছাত্রলীগ টেন্ডারে নাক গলাবেনা এটা সুন্দর কথা। এখানে শেখ হাসিনা সরকারের নির্দেশিত পথে ইলেকট্রনিক টেন্ডার হচ্ছে। আমি মনে করি ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মী অতন্দ্রপহরীর মত শেখ হাসিনার প্রদত্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে শেষদিন পর্যন্ত কাজ করবে।’           

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক  শাহিনুর রহমান, কোষাধ্যাক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা, সিন্ডিকেট সদস্য ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী আলিমুজ্জামান টুটুল, ভারপ্রাপ্ত পরিচালক পরিকল্পনা উন্নয়ন এস এম আলী হাসান। এছাড়াও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

ব্রেকিংনিউজ/এমএইচকে/জেআই