রাজশাহীতে সাংবাদিকের উপর হামলা, আটক ৫

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ১২:৪৬

রাজশাহীতে সাংবাদিকের উপর হামলা, আটক ৫

রাজশাহীতে সাংবাদিককের উপর হামলা করে পিটিয়ে জখম করেছে একটি আভিজাত মার্কেটের কথিত নিরাপত্তা কর্মীরা। সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাজশাহী নগরের নিউ মার্কেট সংলগ্ন থিম ওমর প্লাজার সামনে এ ঘটনায় ঘটে। হামলায় আহত সাংবাদিক রফিকুল ইসলামকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। এ ঘটনায় দুপুরে পুলিশ তিন নিরাপত্তা কর্মীসহ পাঁচজনকে আটক করে। এ নিয়ে বোয়ালিয়া থানায় মামলা মামলা হয়েছে।

সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম কালেরকণ্ঠের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান। তিনি মাছ কেনার জন্য তিনি নিউ মার্কেটের মাছের আড়তে গিয়েছিলেন। মোটরসাইকেল রাখার জের ধরে থিম ওমর প্লাজার নিরাপত্তা কর্মীরা তার উপর হামলা করে।

আটককৃতরা হলেন, থিম ওমর প্লাজার নিরাপত্তা কর্মী ও নগরের তেরখাদিয়া এলাকার (ভাড়াটিয়া) মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে আবদুল হাকিম (৪৮), পবার মথুরা এলাকার মতিউর রহমানের ছেলে নাহিদ (২০), বহরমপুর এলাকার গনেষের ছেলে শ্রী সানি (২২) এবং থিম ওমর প্লাজার কর্মচারি নগরের ষষ্ঠীতলা এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে সাইদ আলী (৩৪), কাটাখালীর মাসকাটাদিঘী এলাকার আলতাফ হোসেনের ছেলে জামাল হোসেন মুন্না (২৫)।

শিরোইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহফুজুর রহমান জানান, সকালে মাছ কেনার জন্য থিম ওমর প্লাজার মূল গেট থেকে একটু দূরে মোটরসাইকেল রাখেন সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম। এসময় একজন নিরাপত্তা কর্মী এসে সাংবাদিক রফিকুল ইসলামের মোটরসাইকেলের উপরে রাখা হেলমেটটি নিয়ে যায়। এ নিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে তিনজন নিরাপত্তা কর্মী রফিকুলের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সাংবাদিক রফিক জানান, মোটরসাইকেল রাখার সাথে সাথে কিছু না বলেই এক নিরাপত্তা কর্মী হেলমেট নিয়ে চলে যায়। যানতে চাইলে সে বলে ‘এখানে আই। নিয়ে যা তোর হেলমেট।’ এক পর্যায়ে মুন্না এগিয়ে আসে তার দিকে। এসময় সে বলে, ‘এখানে গাড়ি রাখা যাবে না।’ রফিকুল বলে, ‘মাছ কেনা হলেই আমি চলে যাবে।’ নিরাপত্তা কর্মী বলে, ‘এটা তোর বাবার জায়গা? যে এখানে গাড়ি রেখেছিস বলেই এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করে তারা। এসময় কয়েকজন মাছ ব্যবসায়ী ও পথচারীরা এসে আমাকে উদ্ধার করেন। আবারও নিরাপত্তা কর্মী সানি, হাকিম ও নাহিদ এসে লাঠি দিয়ে দ্বিতীয় দফায় মারধর করে। খবর পেয়ে সাংবাদিকরা গিয়ে উদ্ধার করে।

এবিষয়ে রাজশাহীর সাংবাদিক নেতারা বলেন, গত সপ্তায় থিম ওমর প্লাজায় মালিক ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি বেশ কয়েকজন সাংবাদিকের সামনে সাংবাদিক রফিকুল ইসলামকে হত্যা করে গুম করে দেওয়ার হুমকি দেয়। এমপি ফারুক চৌধুরীর হুকুমেই এই হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে তার কর্মচারীরা। তা না হলে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটতো না। 

রাজশাহী সংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ বলেন, সাংবাদিক রফিকুল ইসলামের উপর হামলা পরিকল্পিত। এই ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে হামলাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। রাজশাহী সাংবাদিক সমাজের পক্ষ থেকে এই হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি।

ব্রেকিংনিউজ/এমজি