আইসিইউতে শেখ সেলিমের জামাতা, কিডনি ও লিভারে স্প্লিন্টার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ০৩:৪৭ আপডেট: ০৬:২১

আইসিইউতে শেখ সেলিমের জামাতা, কিডনি ও লিভারে স্প্লিন্টার

শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা হামলায় গুরুতর আহত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের জামাতা মশিউল হক চৌধুরী নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন আছেন।

ওই হামলায় নিহত নাতি জায়ান চৌধুরীর জানাজার স্থান পরিদর্শনে এসে মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান শেখ সেলিম। 

তিনি বলেন, ‘মশিউল হক চৌধুরীর পা ও পেটে অস্ত্রোপচার হয়েছে। তিনি ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে আছেন। তার কিডনি ও লিভারে স্প্লিন্টার রয়েছে।’

আহত মশিউলের বর্তমান শারীরিক যে অবস্থা তাতে করে আগামী দুই সপ্তাহের আগে তাকে আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্য কোথাও স্থানান্তর করা যাবে না বলেও চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে জানান শেখ সেলিম। 

এসময় বনানী কবরস্থানে নাতি জায়ানের জানাজার স্থান পরিদর্শনে এসে সবার কাছে বেদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন তিনি। 

এদিকে মঙ্গলবার জায়ানের মরদেহ দেশে আনার কথা থাকলেও একদিন পিছিয়ে আগামীকাল বুধবার তার লাশ দেশে আনা হবে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন শেখ সেলিমের ছোট ভাই শেখ ফজলুর রহমান মারুফ। 

তিনি জানান, বুধবার আসরের নামাজের পর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে প্রথম জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে জায়ানের দাফন হবে।

এসময় শোকসন্তপ্ত পরিবারটিকে সান্ত্বনা দিতে এসে আওয়ামী লীগের আরেক শীর্ষ নেতা তোফায়েল আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘এমন একটা সুখী পরিবারে এমন ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। পরিবারটি জায়ানের মৃত্যুর শোক কাটিয়ে উঠুক- এই দোয়া করি।’

মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স তার স্ত্রী শেখ সোনিয়া (শেখ সেলিমের কন্যা) ও দুই ছেলেকে নিয়ে শ্রীলঙ্কায় বেড়াতে গিয়েছিলেন। ৮ বছরের ছেলে জায়ানকে নিয়ে হোটেলের নিচে খেতে যাওয়ার সময়ই বোমা বিস্ফোরণ ঘটে। হামলায় জায়ান মারা গেলেও গুরুত্বর আহত হন প্রিন্স। তবে হোটেলকক্ষে থাকায় বেঁচে যান সোনিয়া ও তাদের আরেক সন্তান।

জায়ানের মরদেহ আনতে রবিবার রাতেই কলম্বোর উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন তার নানি (শেখ সেলিমের স্ত্রী) ও ছোট মামা শেখ নাইম। বড় মামা শেখ ফাহিম প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ব্রুনাই সফরে গেলেও তিনি সেখান থেকেই কলম্বোয় চলে গেছেন।

গতকাল রবিবার (২১ এপ্রিল) স্থানীয় সময় সকাল পৌনে ৯টার দিকে শ্রীলঙ্কার তিনটি গির্জা ও তিনটি হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ৩১০ জনের প্রাণহানি হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ২ বাংলাদেশিসহ ৩৭ বিদেশি নাগরিক রয়েছেন বলে বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৫ শতাধিক লোক। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে দেশটির চিকিৎসকরা। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। 

এদিকে শ্রীলঙ্কায় এই নৃশংস হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে নিহতদের প্রতি শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিশ্বনেতারা।

শ্রীলঙ্কায় এই নৃশংস এ হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩১০ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। সন্দেহভাজন অন্তত ৪০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

bnbd-ads
bnbd-ads