ভূমধ্যসাগরে ভাসছেন ৬৪ বাংলাদেশি, বাঁচার আকুতি

নিউজ ডেস্ক
১২ জুন ২০১৯, বুধবার
প্রকাশিত: ০৮:২১

ভূমধ্যসাগরে ভাসছেন ৬৪ বাংলাদেশি, বাঁচার আকুতি

ভূমধ্যসাগরের তিউনিশিয়া উপকূল থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে ৬৪ বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী আটক পড়েছেন। এছাড়াও তাদের সাথে আরও ১১ জন অভিবাসী আটকা পড়েছেন। তারা মরক্কো, সুদান ও মিসরের নাগরিক।

সম্প্রতি সেখানে অভিবাসী বোঝাই বোটডুবিতে ৭০ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যুর রেশ না কাটতেই আবার ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী আটকা পড়লো। তিউনিসিয়ার সমুদ্রসীমা থেকে মিসরের একটি নৌকা এই অভিবাসীদের উদ্ধার করলেও তাদের গ্রহণ করতে কোনো দেশ রাজি হচ্ছে না।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানিয়েছে,  ১২ দিন ধরে তারা ওই উপকূল থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে সমুদ্রে আটকা পড়ে আছেন। তাদের অবস্থা শোচনীয়। তাদেরকে খাদ্য ও চিকিৎসা সুবিধা দেয়া হচ্ছে। কিন্তু এসব সুবিধা গ্রহণ করতে তারা অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তাদের একটিই দাবি, ইউরোপ যেতে দিতে হবে।

সমুদ্রে এতদিন থাকার ফলে অভিবাসীদের অবস্থা খুবই শোচনীয় বলে জানিয়েছেন রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা মংগি স্লিম। তাদের চিকিৎসাসেবা দিতে ইতিমধ্যে রেড ক্রিসেন্টের চিকিৎসকরা সেখানে পৌঁছেছেন। তবে খাদ্য, চিকিৎসাসহ সব ধরনের সাহায্য নিতে কয়েকজন অস্বীকৃতি জানায় বলে রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

রেড ক্রিসেন্ট জানায়, লিবিয়া থেকে একটি গ্রুপে এসব মানুষ ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রা করেছিলেন সমুদ্রপথে। এর মধ্যে ৬৪ জন বাংলাদেশী। বাকিরা মরক্কো, সুদান ও মিশরের নাগরিক। তাদেরকে বহনকারী বোট ডুবে গিয়েছিল কিনা, এসব বিষয় তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কারভাবে জানা যায় নি। তবে এটুকু জানা গেছে যে, তিউনিশিয়ার জলসীমায় এসব অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে মিশরের একটি বোট। কিন্তু স্থানীয় মেডিনিন কর্তৃপক্ষ এসব অভিবাসীকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। কারণ, শরণার্থী রাখার জন্য তাদের যেসব সেন্টার রয়েছে তাতে অত্যধিক মানুষে ঠাসা। স্থান সংকুলান হবে না সেখানে। ফলে তারা ওইসব অভিবাসীকে তীরে ভিড়তে দিচ্ছে না। এ জন্য জারজিস উপকূল থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে সমুদ্রে আটকা পড়ে আছেন ওই অভিবাসীরা। 

গত মাসে লিবিয়া থেকে ইউরোপ যাওয়ার পথে তিউনিসিয়ার উপকূলে নৌকাডুবিতে ৭০ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে, যার মধ্যে ৩৭ বাংলাদেশি নাগরিক ছিলেন।

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ