প্রতিটি জেলায় চামড়া সংরক্ষণে সরকারি উদ্যোগের দাবি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ১০:০৩ আপডেট: ১১:২১

প্রতিটি জেলায় চামড়া সংরক্ষণে সরকারি উদ্যোগের দাবি

বাংলাদেশ বিপুলসংখ্যক উন্নতমানের কাঁচা চামড়ার উৎস হলেও সরকারিভাবে তা সংরক্ষণের কোনো উপায় নেই। প্রতিবছর কোরবানির ঈদের সময় এক সাথে অনেক চামড়া পাওয়া গেলেও তা সংরক্ষণে হিমশিম খেতে হয়। এতে বিপুলসংখ্যক মূল্যবান চামড়া যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসায়িরা। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চামড়া সংরক্ষেণে সরকারি উদ্যোগের দাবি জানিয়েছে ব্যবসায়িরা।
 
ব্যবসায়ীরা বলছে, বিচ্ছিন্নভাবে ব্যবসায়িরা কিছু চামড়া সংরক্ষণ করলেও বিপুলসংখ্যক চামড়া নষ্ট হচ্ছে প্রতিবছর। চামড়া সংরক্ষণ ব্যবস্থা গড়ে তোলা সম্ভব হলে দেশের চামড়া শিল্প সারা বছরই উন্নতমানের চামড়া পাবে, যা দিয়ে দেশের রপ্তানি বাজার আরো বেগবান হবে।

সম্প্রতি অনেকটা খোলা আকাশের নিচে পড়ে থাকা মূল্যবান কাঁচা চামড়া বেচাকেনা নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছে আড়তদার ও ট্যানারি মালিকদের মধ্যে। ট্যানারি মালিকরা প্রস্তুতিও নিয়েছিল চামড়া কেনার জন্য, কিন্তু হঠাৎ বিগড়ে গেছে আড়তদাররা। তাদের দাবি, ট্যানারি মালিকদের কাছ থেকে বকেয়া ৪০০ কোটি টাকা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত চামড়া বিক্রি করবে না। অন্যদিকে ট্যানারি মালিকরা বলছে, তাদের পুঁজির সংকট রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিবছরই একই ঘটনা ঘটছে। অথচ সরকারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে বড় ধরনের পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। কোরবানির সোয়া কোটি পশুর চামড়া প্রক্রিয়াকরণ করার কোনো পরিকল্পনা এখনো নেওয়া হয়নি। সরকারের পক্ষ থেকে চামড়া রাখার মতো কোনো স্থান ঠিক করা হয়নি। সারা দেশে বিসিকের প্লট থাকলেও সেখানেও চামড়া রাখার কোনো ধরনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়নি। যতটুকু হয়েছে ব্যক্তি খাতের হাত ধরে।

পোস্তার এক আড়তদার বলেন, ৪০ বছর ধরে তিনি এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। চামড়ার এমন ধস কখনো দেখেননি। তাই এই শিল্পকে রক্ষায় শিগগিরই সরকারের নীতিমালায় পরিবর্তন আনা জরুরি বলে মনে করেন তিনি। মতিউর রহমান বলেন, ট্যানারি মালিকদের ভয়ংকর এই ছোবল থেকে দেশের চামড়াশিল্পকে রক্ষায় লোকাল এলসি নীতিমালা করা যেতে পারে। তাদের প্রণোদনা না দিয়ে স্থানীয় পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে তিন-চার কেজি করে লবণ সরবরাহ করে স্থানীয়ভাবেই দু-এক দিন চামড়া সংরক্ষণ করা যেতে পারে। শুধু ঢাকায় নয়, সারা দেশে চামড়া সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে পারে সরকার।

ব্রেকিংনিউজ/এসএসআর