আবরার হত্যার বিচার চায় যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১১ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ আপডেট: ০৩:০০

আবরার হত্যার বিচার চায় যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচার দাবি তুলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স।

বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসের ভেরিফাইড অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আমি হতবাক ও মর্মাহত। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা যেকোনও গণতান্ত্রিক দেশের মৌলিক অধিকার।’







প্রতিক্রিয়ায় তিনি আরও বলেন, ‘আবরারের অকাল মৃত্যুতে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত ও ন্যায়বিচারের দাবির সঙ্গে আমরা একাত্মতা প্রকাশ করছি। সেইসঙ্গে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি জানাচ্ছি আন্তরিক সববেদনা।  

মার্কিন দূতাবাস থেকে বার্তাটি বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় প্রচার করা হয়।

এদিকে আবরার হত্যার ঘটনায় ঢাকাস্থ ফ্রান্স দূতাবাসের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে আবরারের ছবিসহ প্রচারিত এক পোস্টে বলা হয়, ‘আবরারের হত্যাকাণ্ডে আমরা (ফ্রান্স) গভীরভাবে মর্মাহত ও বিস্মিত। আমরা ওই বুয়েট শিক্ষার্থীর শোকাহত পরিবার, স্বজন ও বন্ধুদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি। একইসঙ্গে এ ঘটনার ন্যায়বিচার নিশ্চিতের দাবির সঙ্গে একত্মতা প্রকাশ করছি।’









\








ইংরেজিতে দেয়া ওই বার্তায় ‘কিলিং’, ‘সিমপ্যাথি’ ও ‘জাস্টিজ’ এ তিনটি শব্দকে হ্যাশট্যাগ করা হয়েছে।

ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতা করে শনিবার (৫ অক্টোবর) বিকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন ফাহাদ। এর জের ধরে রবিবার রাতে শেরেবাংলা হলের নিজের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে তাকে ডেকে নিয়ে ২০১১ নম্বর কক্ষে বেধড়ক পেটানো হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পিটুনির সময় নিহত আবরারকে ‘শিবিরকর্মী’ হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালায় খুনিরা। তবে আবরার কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না বলে নিশ্চিত করেছেন তার পরিবারের সদস্যসহ সংশ্লিষ্টরা।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর