সুবিচার ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় কারবালার আত্মত্যাগ আমাদের প্রেরণা: ফখরুল

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: ১১:৫৭ আপডেট: ০১:৪৫

সুবিচার ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় কারবালার আত্মত্যাগ আমাদের প্রেরণা: ফখরুল

গুম-খুন-হত্যা আর রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের এই বাংলাদেশে সুবিচার ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় কারবালার আত্মত্যাগের ঘটনা দেশবাসীকে প্রেরণা জোগাবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘রাষ্ট্রীয় উৎপীড়নের মুখে বিপর্যস্ত বাংলাদেশের জনগণ। ন্যায় ইনসাফ রাষ্ট্র-সমাজ থেকে বিদায় নিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সুবিচার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে কারবালার আত্মত্যাগের ঘটনা আমাদের প্রেরণা জোগাবে।’ 

তিনি বলেন, ‘সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে যুদ্ধ করতে গিয়ে হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর প্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) এর শহীদ হওয়ার শোকাবহ স্মৃতি বিজড়িত দিন ১০ মহররম আমাদের আজও গভীর দুঃখ ভারাক্রান্ত ও বেদনার্ত করে তোলে। অসত্য, জুলুম ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে জেহাদ করতে গিয়ে কারবালায় তিনি, নিজ পরিবার, ঘনিষ্ঠজন ও অনুচরসহ জালিমের হাতে শহীদ হন।’ 

ফখরুল বলেন, ‘ব্যক্তিগত কোনও অভিলাষ নয় বরং অবিচার, জবরদস্তি, মিথ্যা অহংকার ও আত্ম-সম্মানহীন নিপীড়কের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে গিয়ে তার নিজের আত্মত্যাগের ঘটনা সারা দুনিয়ার সব মজলুমকে প্রতিবাদী হতে শতাব্দির পর শতাব্দি ধরে প্রেরণা যুগিয়ে চলছে।’

বিবৃতিতে হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) এর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে ইমাম হোসাইন (রা.), তাঁর পরিবার ও কারবালার শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করেন মির্জা ফখরুল। 

উল্লেখ্য, ৬৮০ সালের এই দিনে বর্তমান ইরাকের কারবালা নামক স্থানে ইসলামের নবী মোহাম্মদের দৌহিত্র হোসাইন ইবনে আলীকে, যিনি ইমাম হোসাইন নামে পরিচিত তাকে প্রতিপক্ষ ইয়াজিদের সৈন্যরা কারবালা প্রান্তরে পরিবার ও ঘনিষ্টজনসহ নির্মমভাবে হত্যা করে। শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম ইসলামের মহান আদর্শকে সমুন্নত রাখতে হজরত ইমাম হোসাইনের (রা.) আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে আছে। কারবালার শোকাবহ ঘটনা অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে এবং সত্য ও সুন্দরের পথে চলতে প্রেরণা জোগায়।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর