এবার যুবলীগ নেতা জি কে শামীম আটক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার
প্রকাশিত: ০২:৫৩ আপডেট: ০৩:২২

এবার যুবলীগ নেতা জি কে শামীম আটক

এক সময়ের ঢাকা মহানগর যুবদলের সহ-সম্পাদক বর্তমান যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমকে ১০০ কোটি টাকার এফডিআর চেক’সহ আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) শামীমকে রাজধানীর নিকেতনের ১১৩ নম্বর বাসা থেকে আটক করা হয়। এ প্রতিবেদন লিখা মুহূর্তে শামীমের নিকেতনের অফিসে (১৪৪ নম্বর) অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। 

অভিযান পরিচালনা করছেন র‍্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলম। 

র‌্যাবের একজন সদস্য ব্রেকিংনিউজকে জানিয়েছেন, শামীমের অফিস থেকে ১২৫ কোটি টাকার এফডিআর চেকসহ নগদ প্রায় ২ কোটি টাকার দেশি ও বিদেশি নোট জব্দ করা হয়েছে। শামীমের কাছে একটি অস্ত্রও পেয়েছে র‌্যাব। তবে সেই অস্ত্রের লাইসেন্স রয়েছে কি না, তা এখনও জানা যায়নি।



নাম না প্রকাশের শর্তে একজন র‌্যাব সদস্য ব্রেকিংনিউজকে জানান, জুয়ার ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাতে র‌্যাবের অভিযানে গ্রেফতার হওয়া যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূইয়াকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই জি কে শামীমকে আটকে অভিযান চালানো হয়।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সিনিয়র সহকারী পরিচালক এএসপি মিজানুর রহমান ভুঁইয়া জি কে শামীমকে আটকের বিষয়টি ব্রেকিংনিউজকে নিশ্চিত করে বলেন, ‘অভিযান চলছে। এখন পর্যন্ত কতজন আটক হয়েছে তা বলা যাচ্ছে না। অভিযান শেষে তা জানানো হবে।’

জি কে শামীম ঠিকাদারি জগতের প্রভাবশালী হিসেবে পরিচিত। তিনি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক। তবে বিএনপি সরকারের আমলে শামীম যুবদলের রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন বলে জানা যায়। ওই সময়ই তিনি বিএনপি নেতাদের সমর্থনপুষ্ট হিসেবে গণপূর্ত ভবনের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণে নেন। যুবদলের সহ-সম্পাদকের পদেও ছিলেন জি কে শামীম।


পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সরকার রাষ্ট্রক্ষমতায় এলে ধীরে ধীরে যুবদল ছেড়ে যুবলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে ওঠেন শামীম। বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির পদেও রয়েছেন কেন্দ্রীয় এই যুবলীগ নেতা। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচনের জন্য প্রচারণাও চালিয়েছিলেন শামীম।

এর আগে আওয়ামী লীগের ‘শুদ্ধি অভিযানের’ অংশ হিসেবে গত বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে অবৈধভাবে জুয়ার ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে অস্ত্রসহ গুলশান-২ এর বাসা থেকে যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। খালেদ মাহমুদ রাজধানীর ফকিরাপুলে ইয়ংমেনস ক্লাব নামে একটি জুয়ার ক্যাসিনোর মালিক। একইদিন বিকেলে ইয়ংমেনস ক্লাবটিতে অভিযান চালিয়ে ১৪২ জনকে আটক করে র‌্যাব। জব্দ করা হয় নগদ অর্থ, অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য। ওই রাতে রাতভর কাকরাইলে মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন সম্রাটকে গ্রেফতার আতঙ্কে পাহারা দিয়ে রাখে সহস্রাধিক নেতাকর্মী। গতকাল বৃহস্পতিবার ‘ক্যাসিনো খালেদকে’ ৭ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।   

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/এমআর

bnbd-ads