সংবাদ শিরোনামঃ
bnbd-ads
bnbd-ads

শব-ই-বরাতের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তি অবসানে ১১ সদস্যের উপ-কমিটি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১৪ এপ্রিল ২০১৯, রবিবার
প্রকাশিত: ০৬:৫০ আপডেট: ১০:৩০

শব-ই-বরাতের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তি অবসানে ১১ সদস্যের উপ-কমিটি

বিশেষ বৈঠক ডেকেও পবিত্র শব-ই-বরাতের চাঁদ দেখা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার অবসান হয়নি। শাবান মাসের চাঁদ দেখা নিয়ে বিতর্কের অবসান ঘটাতে শেষ পর্যন্ত বৈঠকে ১১ সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি আগামী ১৭ এপ্রিলের মধ্যে শাবান মাসের চাঁদ দেখা এবং শব-ই-বরাতের তারিখ নির্ধারণ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে। তবে কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানোর আগ পর্যন্ত ২১ এপ্রিল রাতে শব-ই-বরাত পালনের যে ঘোষণা চাঁদ দেখা কমিটি ৬ এপ্রিল দিয়েছে তা বহাল থাকবে।

এর আগে শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল ১১টায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভা কক্ষে বিশেষ বৈঠক আহ্বান করা হয়। প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠক শেষে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ বলেন, বিষয়টা যেহেতু ধর্মীয়, যারা আমাদের দেশে সব চাইতে জ্ঞানবান আলেম, তাদের ওপর দায়িত্বটা দেয়া হয়েছে। তারাই সিদ্ধান্ত নেবেন।

গত ৬ এপ্রিল শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার পরে শাবান মাসের চাঁদ দেখা পর্যালোচনা এবং পবিত্র শব-ই-বরাতের তারিখ নির্ধারণে বৈঠক বসে। বৈঠকে চাঁদ দেখা পর্যালোচনা শেষে ঘোষণা দেয়া হয় ওইদিন দেশের আকাশে কোথাও শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। ফলে রজব মাস ৩০ দিন পূর্ণ হবে। সে অনুযায়ী ২১ এপ্রিল রাতে পালিত হবে লাইলাতুল বরাত। কিন্তু ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এই সিদ্ধান্তে আপত্তি জানায় ধর্মীয় একটি সংগঠন। তারা দাবি করে ৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় শাবান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। এই হিসাব অনুযায়ী ২০ এপ্রিল রাতে পালিত হবে লাইলাতুল বরাত। ওই ধর্মীয় সংগঠনের পক্ষ থেকে এই দাবি তোলার পর শনিবার বিশেষ সভা ডাকে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

ভিন্নমত পোষণকারীদের দাবি যাচাইয়ে মারকাযুদ দাওয়াহ-এর শিক্ষা সচিব মুফতি মাওলানা আবদুল মালেককে প্রধান করে বিশিষ্ট উলামায়ে কেরামের সমন্বয়ে ১১ সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য সদস্যগণ হলেন- কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহের ইমাম আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ, ফরিদাবাদ মাদ্রাসার মুহতামিম ও বেফাকের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, গোপালগঞ্জের গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি রুহুল আমীন, শায়খ যাকারিয়া (রহ.) ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের মহাপরিচালক মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ, জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম (মসজিদুল আকবর কমপ্লেক্স) মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি দিলাওয়ার হোসাইন, তেজগাঁও মদীনাতুল উলুম কামিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক আল আযহারী, লালবাগ মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতি মো. ফয়জুল্লাহ, লালবাগ মাদ্রাসার প্রধান মুফতি মাওলানা ইয়াহ্ইয়া, মোহাম্মদপুর জামেয়া রাহমানিয়ার প্রিন্সিপাল মুফতি মো. মাহ্ফুজুল হক ও বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।

ব্রেকিংনিউজ/এনকে