দুই নৌকায় পা দিয়ে বিপদে মাইক হেসন!

স্পোর্টস ডেস্ক
১৭ আগস্ট ২০১৯, শনিবার
প্রকাশিত: ০৩:৫৩ আপডেট: ০৩:৫৫

দুই নৌকায় পা দিয়ে বিপদে মাইক হেসন!

দুই দফা বাংলাদেশে এসে ইন্টারভিউ দেয়ার কথা ছিলো। কিন্তু বাংলাদেশে আসলেন না। তবে ঠিকই বিসিসিআইয়েল ডাকে সাড়া দিয়ে গেলেন ভারতে। আর এতেই কিছুটা নাখোশ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ব্যাস, এতটুকুতেই ইন্টারভিউ দেয়া ডামিঙ্গোকে হেড কোচ হিসেবে ঘোষণা দিলো বিসিবি। 

অবশ্য হওয়াটাই স্বাভাবিক! নিউজিল্যান্ডের সাবেক এই কোচকে নিয়ে দেশের ক্রিকেট অঙ্গনে জোর আলোচনা। হেসন কোচ হলে দেশের ক্রিকেট কোন গতিতে এগোতে পারে- কেউ কেউ যেন পারলে সেই হিসেবনিকেশও কষে বসেন। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে হেসন কি না ভারতে যাওয়ার জন্য অপেক্ষমাণ রাখতে চাইলেন বাংলাদেশকে। বিসিবির তো নাখোশ হওয়াটাই স্বাভাবিক! মাইক হেসনের দুই নৌকায় পা দেয়া মোটেও পছন্দ হয়নি বিসিবির। 
 
সেই হেসন ভারতের কোচের পদে জায়গা করে নিতে পারেননি। গতকাল শুক্রবার (১৬ আগস্ট) শর্টলিস্টে থাকা কোচদের সাক্ষাৎকার শেষে রবি শাস্ত্রীকেই কোচের পদে বহাল রেখেছে এতদিন নতুন কোচ নেওয়ার ‘লোভ দেখানো’ বিসিসিআই। পেশাদারিত্বের দিক থেকে বিসিসিআই নিজেদের জায়গায় ঠিক থাকলেও এতে কপাল পুড়েছে হেসনের। তার জন্য বাংলাদেশের দরজাটিও যে আঁটসাঁট হয়ে পড়েছে!

হেসনের ‘পিছুটান’ বাংলাদেশকে অন্য কোচের সাথে ‘অন্তরঙ্গ’ হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল। সাবেক প্রোটিয়া কোচ রাসেল ডমিঙ্গো- যিনি কিনা জাতীয় দলের কোচ হতে খুব একটা আগ্রহই নাকি দেখাননি। তাকেই কোচ বানালেন বিসিবি। ইন্টারভিউ দেয়া এ প্রোটিয়ার ওপর এমনিতেই খুশি ছিলো বিসিবি।  তাই শেষমেষ বিসিবি আস্তা রাখলেন পছন্দের কোচের ওপরই। 

বিসিবিকে ভাবিয়েছে আরও একটি বিষয়। শাস্ত্রীকে সরানোর জন্য ভারতের ক্রিকেট অঙ্গনে একটি পক্ষ বেশ সোচ্চার ছিল। কিন্তু শর্টলিস্টে থাকা অন্য কাউকেই শাস্ত্রীর চেয়ে ভালো মনে হয়নি বিসিসিআইয়ের। কোচদের সেই দৌড়ে হেসন ছিলেন দ্বিতীয়। ভারত যেহেতু হেসনকে বেছে নেয়নি, বাংলাদেশ নিবে কী করে? এই অদ্ভুত ভাবনাও হেসনকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশের কোচ হওয়ার দৌড়ে!

বিশ্বকাপের পর ভারত ছাড়াও বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান নামে নতুন কোচের সন্ধানে। তাতে সাবেক কিউই কোচ হেসনের মত হাই প্রোফাইল কোচদের মূল্য বেড়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। তবে বাংলাদেশকে ‘দ্বিতীয় পছন্দ’ হিসেবে রেখে ভারতে ছুটে যাওয়া হেসন বাংলাদেশের কাছে কিছুটা মর্যাদা হারিয়েছেন বটে। তাই তাকে কোচ করার ব্যাপারে আর কোনো আলাপচারিতায় যেতে চায় না বিসিবি।

অবশ্য হেসন বাংলাদেশে না এলেও ঈদের আগে তার সাথে আলোচনা হয়েছে বোর্ডের। তাতে খুব একটা সন্তুষ্ট হতে পারেননি স্টিভ রোডসের উত্তরসূরি খোঁজার কাজে ন্যস্ত কর্তারা। এটিই বাংলাদেশকে ব্রাত্য রেখে ভারতে ছুটে যাওয়াই বোধহয় সাকিব-তামিমদের কোচ হওয়ার পথে বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে সম্প্রতি আইপিএলের দল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের সাথে সম্পর্ক ছেদ হওয়া হেসনের!

ভারতের পর বাংলাদেশেও ‘জায়গা না পেলে’ হেসন হয়ত পাড়ি জমাবেন পাকিস্তানে। এশিয়ার এই পরাশক্তি দলের বোর্ডও হেসনকে কোচ করতে আগ্রহী। সেক্ষেত্রে তার বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন মিসবাহ উল হক। সাবেক অধিনায়ক আপাতত এগিয়ে সরফরাজ আহমেদের দলের প্রধান কোচ হওয়ার দৌড়ে। পাকিস্তান যদি মিসবাহকে স্থায়ী কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয় তাহলে সবই হারাতে হবে মাইক হেসনের। 

অন্যদিকে ক্রিকেট বোদ্ধারা বলছেন, ইতোমধ্যেই হেসন দুই নৌকায় পা রেখে বেশ বিপদে পড়েছেন। 

ব্রেকিংনিউজ/এএফকে