শিরোনাম:

‘কোনো বাবা-মা যেন মেয়েকে সৌদি আরবে না পাঠায়’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

২১ মে ২০১৮, সোমবার
প্রকাশিত: 12:36 আপডেট: 2:52
‘কোনো বাবা-মা যেন মেয়েকে সৌদি আরবে না পাঠায়’

‘প্রতিদিন ১০টা ঘর ও ঘরের বাইরে ঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কার করতে হতো। সেখানে মক্তবে থাকার ব্যবস্থা ছিল। কথায় কথায় গলা টিপে ধরতো। নারীরা হাত দিয়ে মারত, পুরুষরা লাঠি দিয়ে এবং আরও খারাপ কাজ করত। এমনভাবে মারত যেন কাউকে দেখাতে না পারি। কোনো বাবা-মা যেন তার মেয়েকে সৌদি আরবে না পাঠান। হাজার হাজার মক্তবে শত শত বাংলাদেশি মেয়ে আছে। ওদের তালাবদ্ধ করে রাখে ওরা।’

ব্রেকিংনিউজকে কথাগুলো বলছিলেন সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরা ঝিনাইদহের মরিয়ম বেগম। বয়স ৩৫। এক বছর আগে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন তিনি। এই এক বছরে তিনি ৪টি বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করেছেন। প্রতিটি বাসায় তাকে নির্যাতন করা হয়েছে। মারধর করা হয়েছে। এমনকি শারীরিকভাবে খারাপ কাজ করতে বাধ্য করা হয়েছে তাকে। 



কম খরচে সৌদি আরবে উচ্চ বেতনে গৃহস্থালির কাজের সন্ধানে বাংলাদেশি অনেক নারীই পারি জমিয়েছিলেন সৌদিতে। সৌদিতে নারীদের কাজের জন্য বাংলাদেশি অনেকেই বেশ উপযুক্ত মনে করলেও গত দুই দিনে সোদি থেকে ফেরা প্রায় শতাধিক নারীদের নির্যাতনের কথা শুনে কেউই সে দেশে যেতে হয়তো আর রাজি হবেন না।

শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়ে কেবল সৌদি আরব থেকেই গত ৩ বছরে ফিরেছেন ৪ হাজারের বেশি নারী শ্রমিক। নির্যাতিত সেসব নারীরা বলছেন, সম্মানজনক কাজ দেয়ার কথা বলে দেশটিতে নিয়ে গেলেও যাওয়ার পর থেকে তাদের আটকে রেখে মারধর ও যৌন নির্যাতন করা হয়। অকথ্য নির্যাতনে অনেকের হাত-পা ভেঙে গেছে।

ব্রেকিংনিউজ/ টিটি/ এসএ 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2