শিরোনাম:

কিডনির নীরব ঘাতক কোমল পানীয়

স্বাস্থ্য ডেস্ক
৬ জুন ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 2:04 আপডেট: 2:30
কিডনির নীরব ঘাতক কোমল পানীয়
ফাইল ছবি

কোমল পানীয় আমাদের খাবারের মেনুর সবচেয়ে নিয়মিত নাম। খাবারের পর কোমল পানীয় না হলে আমাদের প্রায় চলেই না। যদি তাই হয়ে থাকে তবে সেই পিপাসা কিংবা ইচ্ছাকে গুরুত্ব দেওয়া যাবে না একেবারেই। কারণ কোমল পানীয় পানের মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব সরাসরি দেখা দেয় কিডনির উপর।

স্বাস্থ্য এবং বিশেষভাবে কিডনির জন্য নীরব ঘাতক হিসেবে কাজ করে থাকে বাজারে সহজলভ্য নানান স্বাদের ও বর্ণের কোমল পানীয়।

গবেষণা থেকে দেখা গেছে, কিডনির বিভিন্ন ধরণের সমস্যা তৈরি হওয়ার পেছনে কোমল পানীয়ের ভূমিকা অনেকখানি।

কোমল পানীয় পানে কিডনিতে পাথর তৈরি হয় কি?

কোমল পানীয় তৈরি করা হয় কার্বোনেটেড পানি, চিনি অথবা ফ্রুক্টোজ সিরাপ, ফ্রুক্টোজ কর্ন সিরাপ বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল পণ্য ও ফসফরাসের সমন্বয়ে। কোমল পানীয়তে থাকা উচ্চমাত্রার ফসফরিক এসিড, মূত্র বিসর্জনের স্বাভাবিক নিয়মের মাঝে বড় ধরণের পরিবর্তন নিয়ে আসে। যার প্রভাবে কিডনিতে পাথর তৈরি হবার সম্ভবনা বেড়ে যায় বহুগুণ।

কিডনির পাথর তৈরি হয় মূলত চারটি উপাদানের সমষ্টিতে। উপাদানগুলো হলো- ক্যালসিয়াম, অক্সালেট (Oxalate), ফসফেট এবং ইউরিক অ্যাসিড। অন্যদিকে কিডনিতে পাথর তৈরিতে বাধা প্রদান করে সাইট্রেট ও ম্যাগনেসিয়াম।

নিয়মিত কোমল পানীয় পানের ফলে মূত্রতে ম্যাগনেসিয়াম ও সাইট্রেটের মাত্রা কমে যায় এবং অক্সালেটের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ফলে কিডনিতে পাথর তৈরি হবার সম্ভবনা বৃদ্ধি পায় প্রায় ৩৩ শতাংশ।

কোমল পানীয় তৈরি করে ক্রনিক কিডনির সমস্যা:

কিডনিতে পাথর তৈরি করার পাশাপাশি, কোমল পানীয় পানের ফলে ক্রনিক কিডনির সমস্যাও দেখা দিয়ে থাকে। কোমল পানীয় তৈরিতে ব্যবহৃত চিনি ও বিভিন্ন ধরণের কেমিক্যাল সরাসরি নেতিবাচক প্রভাব ফেলে দেয় কিডনিতে। যার ফলে সময়ের সাথে সাথে কিডনি তার স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা হারিয়ে ফেলে।

ব্রেকিংনিউজ/এনকে

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2